শেয়ার
 
Comments
Kisan Suryodaya Yojana will be a new dawn for farmers in Gujarat: PM Modi
In the last two decades, Gujarat has done unprecedented work in the field of health, says PM Modi
PM Modi inaugurates ropeway service at Girnar, says more and more devotees and tourists will now visit the destination

নমস্কার!

 

গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী শ্রী বিজয় রুপানিজি, উপ–মুখ্যমন্ত্রী শ্রী নীতিন প্যাটেলজি, গুজরাট ভারতীয় জনতা পার্টি প্রদেশ অধ্যক্ষ এবং সাংসদ শ্রী সি আর পাটিলজি অন্য সমস্ত মন্ত্রীগণ, সাংসদগণ, বিধায়কগণ, আমার কৃষক বন্ধুরা, গুজরাটের সমস্ত ভাই ও বোনেরা! ,

 

মা অম্বার আশীর্বাদে আজ গুজরাটের উন্নয়নের সঙ্গে যুক্ত তিনটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের শুভ সূচনা হচ্ছে। আজ 'কিষাণ সূর্যোদয় যোজনা', গিরনার রোপওয়ে এবং দেশের বড় ও আধুনিক কার্ডিয়াক হাসপাতাল গুজরাট পাচ্ছে। এই তিনটি প্রকল্পএক প্রকার গুজরাটের শক্তি, ভক্তি এবং স্বাস্থ্যের প্রতীক। এই সবক'টি প্রকল্পের জন্য আমি গুজরাটবাসীকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানাই।

 

ভাই ও বোনেরা,

 

গুজরাট সর্বদাই অসাধারণ সামর্থ্যসম্পন্ন মানুষের মাটি। পুজনীয় বাপু আর সর্দার প্যাটেল থেকে শুরু করে গুজরাটের অনেক সুপুত্ররা দেশকে সামাজিক ও আর্থিক নেতৃত্ব দিয়েছেন। আমি অত্যন্ত আনন্দিত যে 'কিষাণ সূর্যোদয় যোজনা'র মাধ্যমে গুজরাট আবার একটি নতুন উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে এসেছে। 'সুজলাম, সুফলাম' এবং 'সাওনী' যোজনার পর এখন 'সূর্যোদয়' যোজনা গুজরাটের কৃষকদের জন্য মাইলফলক রূপে প্রমাণিত হবে।

 

‘কিষাণ সূর্যোদয় যোজনা'র ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার গুজরাটের কৃষকদের প্রয়োজনীয়তাকে দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুতের ক্ষেত্রে গুজরাটে অনেক বছর ধরে যে কাজ চলছে, তা এই প্রকল্পের অনেক বড় ভিত্তি হয়ে উঠেছে। একটা সময় ছিল যখন গুজরাটে বিদ্যুতের সঙ্কট থাকত। ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ একটি বড় চ্যালেঞ্জের বিষয় ছিল। ছেলে–মেয়েদের পড়াশোনা, কৃষকদের জন্য সেচ প্রকল্প এবং শিল্পোদ্যোগের ক্ষেত্রে এই বিদ্যুতের সঙ্কট ভীষণ প্রভাব ফেলত। এই প্রেক্ষিতে বিদ্যুতের উৎপাদন থেকে শুরু করে ট্রান্সমিশন পর্যন্ত সমস্ত ধরনের ক্যাপাসিটি তৈরি করার জন্য মিশন মোডে কাজ করা হয়েছিল।

 

গুজরাট দেশের প্রথম রাজ্য ছিল যেখানে সৌরশক্তিকে নিয়ে এক দশক আগেই ব্যাপক রণনীতি তৈরি করা হয়েছিল। যখন ২০১০ সালে পাটন–এ সৌরশক্তি প্রকল্প উদ্বোধন হয়েছিল, তখন কেউ কল্পনাও করেননি যে একদিন ভারত বিশ্বকে 'এক সূর্য এক বিশ্ব এক গ্রিড’-এর পথ দেখাবে। আজ তো ভারত সৌরশক্তি উৎপাদন এবং ব্যবহার – উভয় ক্ষেত্রেই বিশ্বে অগ্রণী দেশগুলির অন্যতম। বিগত ছয় বছরে দেশ সৌরশক্তি উৎপাদনের ক্ষেত্রে বিশ্বে পঞ্চম স্থানে পৌঁছে গেছে এবং দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে।

ভাই ও বোনেরা,

 

যাঁদের গ্রামের সঙ্গে সম্পর্ক নেই, চাষের খেতের সঙ্গে সম্পর্ক নেই, তাঁদের মধ্যে খুব কম মানুষই জানবেন যে কৃষকদের সেচের জন্য অধিকাংশ বিদ্যুৎ রাতে দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে খেতে সেচের সময় কৃষকদের রাতের পর রাত জাগতে হয়। জুনাগড় এবং গির–সোমনাথ–এর মতো এলাকাগুলিতে, যেখান থেকে আজ 'কিষাণ সূর্যোদয় যোজনা'র শুভ সূচনা হচ্ছে, সেখানে জংলি জানোয়ারের ভয়ও অনেক বেশি রয়েছে। সেজন্য 'কিষাণ সর্বোদয় যোজনা' শুধুই রাজ্যের কৃষকদের নিরাপত্তা দেবে না, তাঁদের জীবনে নতুন সকালও নিয়ে আসবে। কৃষকদের রাতের বদলে যখন ভোরে, সূর্যোদয় থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত তিন ফেজে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে তখন এটাকে নতুন প্রভাতই তো বলা যায়।

 

আমি গুজরাট সরকারকে এই শুভ সূচনার জন্য শুভেচ্ছা জানাব যে অন্যান্য ব্যবস্থাগুলিকে প্রভাবিত না করে, ট্রান্সমিশনের একদম নতুন ক্যাপাসিটি তৈরি করার এই কাজ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে আগামী ২–৩ বছরে প্রায় ৩,৫০০ সার্কিট কিলোমিটার নতুন ট্রান্সমিশন লাইন পাতার কাজ করা হবে। আমাকে বলা হয়েছে যে, আগামী কয়েক দিনের মধ্যে ১ হাজার থেকে বেশি গ্রামে এই প্রকল্প চালু হয়ে যাবে। এগুলির মধ্যে অধিকাংশ গ্রামই আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকার মধ্যে রয়েছে। যখন এই প্রকল্পটি পুরো গুজরাটে চালু হয়ে যাবে, তখন এটি লক্ষ লক্ষ কৃষকদের জীবনকে, তাঁদের দৈনন্দিন জীবনকে সম্পূর্ণরূপে বদলে দেবে।

 

বন্ধুগণ,

 

কৃষকের আয় দ্বিগুণ করার জন্য, কৃষিক্ষেত্রে বিনিয়োগ কম করার জন্য, তাঁদের সমস্যাগুলি হ্রাস করার জন্য পরিবর্তিত সময়ের সঙ্গে আমাদের প্রচেষ্টা বাড়াতেই হবে। কৃষকদের যে কোনও জায়গায় তাঁদের উৎপাদিত ফসলের বিক্রির স্বাধীনতা দিত, কিংবা হাজার হাজার কৃষক উৎপাদক সঙ্ঘ গড়ে তুলতে, থেমে থাকা সেচ প্রকল্পগুলিকে সম্পূর্ণ করতে কিংবা ফসল বিমা যোজনায় সংস্কার আনতে, ইউরিয়ায় ১০০ শতাংশ নিম কোটিং সুনিশ্চিত করতে কিংবা সারা দেশে কোটি কোটি কৃষকদের মৃত্তিকা স্বাস্থ্য কার্ড প্রদান – এগুলির লক্ষ্য এটাই যে দেশে কৃষিক্ষেত্র আরও শক্তিশালী হবে, কৃষকদের চাষের ক্ষেত্রে কোনরকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না। সেজন্য নিরন্তর নতুন নতুন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

 

দেশে আজ অন্নদাতাদের শক্তিদাতা হিসেবে গড়ে তোলার কাজও করা হচ্ছে। 'কুসুম' যোজনার মাধ্যমে কৃষকদের, কৃষক উৎপাদন সঙ্ঘ – এফপিও–গুলিকে, কো–অপারেটিভগুলিকে, পঞ্চায়েতগুলিকে, এমনই প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানকে ঊষর জমিতে ছোট ছোট সোলার প্ল্যান্ট লাগানোর জন্য সাহায্য করা হচ্ছে। সারা দেশে লক্ষ লক্ষ কৃষকদের সোলার পাম্পগুলিও গ্রিডের সঙ্গে যুক্ত করা হচ্ছে। এগুলির মাধ্যমে যত বিদ্যুৎ উৎপন্ন হবে, সেগুলি কৃষক নিজেদের প্রয়োজন অনুসারে সেচের কাজে ব্যবহার করতে পারবেন আর অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিক্রিও করতে পারবেন। সারা দেশে প্রায় ১৭ লক্ষ ৫০ হাজার কৃষক পরিবারকে সোলার পাম্প লাগানোর ক্ষেত্রে সাহায্য করা হচ্ছে। এর ফলে কৃষকদের সেচের ক্ষেত্রে অনেক সাশ্রয় হবে আর তাঁদের অতিরিক্ত আয়ও সুনিশ্চিত হবে।

 

বন্ধুগণ,

 

গুজরাট তো বিদ্যুতের পাশাপাশি, সেচ এবং পানীয় জলের ক্ষেত্রেও খুব ভালো কাজ করেছে। এই অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত আমরা সবাই জানি যে গুজরাটে জলের অবস্থা কেমন ছিল। অনেক বছর ধরেই বাজেটের অনেকটা বড় অংশ জলের পেছনে খরচ করতে হত। এই বিষয়ে অনেকেরই কোনও ধারণা নেই যে গুজরাটে জলের পেছনে কতটা টাকা খরচ করতে হত। বিগত দু'দশকের প্রচেষ্টায় আজ গুজরাটের সেই জেলাগুলি, সেই গ্রামগুলি পর্যন্তও জল পৌঁছে দেওয়া হয়েছে যেখানে আগে কেউ জল পৌঁছে দেওয়ার কথা ভাবতেও পারতেন না।

 

আজ যখন আমরা সর্দার সরোবরকে দেখি, নর্মদাজির জলকে গুজরাটের খরাপ্রবণ অঞ্চলগুলিতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য রাজ্যে অসংখ্য খালের নেটওয়ার্ককে দেখি, ওয়াটার গ্রিডসকে দেখি, তখন গুজরাটের জনগণের প্রচেষ্টা নিয়ে গর্ব হয়। গুজরাটের প্রায় ৮০ শতাংশ বাড়িতে আজ নলের মাধ্যমে জল পৌঁছে গেছে। অত্যন্ত দ্রুত গুজরাট দেশের সেই রাজ্যগুলির অন্যতম হয়ে উঠবে যেখানে প্রত্যেক বাড়িতে নলের মাধ্যমে জল পৌঁছবে। এক্ষেত্রে যখন আজ গুজরাটে 'কিষাণ সর্বোদয় যোজনা' শুরু হচ্ছে, তখন সবাইকে একটি শপথ, একটি মন্ত্র পুনরুচ্চারণ করতে হবে। এই মন্ত্রটি হল – ‘পার ড্রপ, মোর ক্রপ'। যখন কৃষকরা দিনের বেলায় বিদ্যুৎ পাবেন, তখন আমাদের অধিকাংশ জল সাশ্রয় করার দিকেও ততটাই নজর দিতে হবে। নাহলে এমনও হতে পারে যে বিদ্যুৎ আসছে, জল বয়ে যাচ্ছে, আর আমরা আরাম করে বসে আছি, তাহলে কিন্তু গুজরাট বরবাদ হয়ে যাবে, জলও শেষ হয়ে যাবে। তারপর একদিন জীবনও সঙ্কটগ্রস্থ হয়ে পড়বে। দিনে বিদ্যুৎ পাওয়ার ফলে কৃষকদের জন্য মাইক্রো ইরিগেশনের ব্যবস্থা করা সহজ হবে। গুজরাট মাইক্রো ইরিগেশনের ক্ষেত্রেও অনেক উন্নতি করেছে – বিন্দু বিন্দু সেচ থেকে শুরু করে স্প্রিঙ্কলার, ‘কিষাণ সর্বোদয় যোজনা'র মাধ্যমে এই ব্যবস্থার বিস্তারে অনেক সাহায্য হবে।

 

ভাই ও বোনেরা,

 

গুজরাটে আজ 'সর্বোদয়'-এর পাশাপাশি 'আরোগ্যদয়'ও হচ্ছে। এই আরোগ্যদয় নিজেই একটা বড় উপকার। আজ ভারতের সবথেকে বড় কার্ডিয়াক হাসপাতাল রূপে ইউ এন মেহতা ইনস্টিটিউট অফ কার্ডিওলজি অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার–এর উদ্বোধন করা হয়েছে। এটি দেশের সেই মুষ্ঠিমেয় হাসপাতালের মধ্যে অন্যতম যেগুলিতে বিশ্বমানের পরিকাঠামো রয়েছে এবং ততটাই আধুনিক স্বাস্থ্য পরিষেবা রয়েছে। পরিবর্তিত জীবনশৈলীর ফলে হৃদয় সংক্রান্ত সমস্যাগুলি যে বাড়ছে তা আমরা দেখতে পাচ্ছি। এমনকি, ছোট বাচ্চাদেরও হৃদরোগ হচ্ছে। এক্ষেত্রে এই হাসপাতাল শুধু গুজরাট নয়, সারা দেশের মানুষের জন্য একটি বড় চিকিৎসাকেন্দ্র হিসেবে পরিষেবা প্রদান করবে।

 

ভাই ও বোনেরা,

 

বিগত দুই দশকে গুজরাট আরোগ্য ক্ষেত্রে অভূতপূর্ব কাজ করেছে। বেশ কিছু আধুনিক হাসপাতালের নেটওয়ার্ক থেকে শুরু করে মেডিকেল কলেজ এবং হেলথ সেন্টারগুলির সংখ্যা বৃদ্ধি, গ্রামে গ্রামে উন্নত স্বাস্থ্য পরিষেবা বৃদ্ধির ক্ষেত্রেও বড় কাজ করা হয়েছে। বিগত ছয় বছরে দেশে স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত প্রকল্পগুলি শুরু হয়েছে। তার দ্বারাও গুজরাটের মানুষ উপকৃত হয়েছে। আয়ুষ্মান ভারত যোজনার মাধ্যমে গুজরাটের ২১ লক্ষ মানুষ বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা পেয়েছেন। সস্তা ওষুধ সরবরাহকারী ৫২৫টিরও বেশি জনঔষধি কেন্দ্র গুজরাটে খুলেছে। এগুলির মাধ্যমে গুজরাটের সাধারণ রোগীদের প্রায় ১০০ কোটি টাকা সাশ্রয় হয়েছে।

 

ভাই ও বোনেরা,

 

আজ গুজরাট যে তৃতীয় উপহারটি পেয়েছে সেটির মাধ্যমে আধ্যাত্ম এবং পর্যটন – উভয় ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা যোগ হবে। গিরনার পর্বতে মা অম্বা বিরাজমান, গোরক্ষনাথ শিখরও রয়েছে, গুরু দত্তাত্রেয়র শিখর এবং জৈন মন্দিরও রয়েছে। এখানকার হাজার হাজার সিঁড়ি চড়ে যাঁরা শিখরে পৌঁছতে পারেন, তাঁরা অদ্ভূত শক্তি এবং শান্তি অনুভব করেন। এখন এখানে আন্তর্জাতিক মানের রোপওয়ে গড়ে ওঠার ফলে প্রত্যেকের সুবিধা হবে। সবাই এখন দর্শনের সুযোগ পাবেন। এখন পর্যন্ত এই মন্দিরে যেতে যে ৫–৭ ঘন্টা সময় লাগে, সেই দূরত্ব এখন রোপওয়ের মাধ্যমে মাত্র ৭–৮ মিনিটে পৌঁছনো যাবে। রোপওয়ের এই যাত্রা অ্যাডভেঞ্চারও বাড়াবে, উৎসাহও বাড়াবে। এই নতুন পরিষেবার পর এখানে অনেক বেশি তীর্থযাত্রী আসবেন, অনেক বেশি পর্যটকও আসবেন।

 

বন্ধুগণ,

 

আজ যে রোপওয়ের শুভ সূচনা হল, তা গুজরাটের চতুর্থ রোপওয়ে। বনাসকাঁথা–তে মা অম্বার দর্শনের জন্য পাওয়াগড়ে, সাতপুরায় তিনটি রোপওয়ের আগেই থেকেই চালু রয়েছে। এখন গিরনার রোপওয়ে তৈরির ক্ষেত্রে বাধা না দিলে, এত বছর কাজটি থেমে থাকত না। জনগণ এবং পর্যটকরা অনেক বছর আগেই এই রোপওয় সফরের আনন্দ নিতে পারতেন। একটি রাষ্ট্র হিসেবে আমাদেরও ভাবতে হবে যে যখন সাধারণ মানুষের জন্য বড় বড় পরিষেবা প্রদানকারী ব্যবস্থা নির্মাণ করা হয়, সেগুলিকে দীর্ঘ সময় ধরে আটকে রাখা উচিৎ নয়। আটকে রাখলে মানুষের কত লোকসান হয়। দেশের কত লোকসান হয়। এখন যখন এই গিরনার রোপওয়ের শুভ সূচনা হচ্ছে, তখন আমি অত্যন্ত আনন্দিত যে এখানকার মানুষ তো পরিষেবা পাবেনই, স্থানীয় যুব সম্প্রদায়ের রোজগারের ক্ষেত্রে আরও অধিক সুযোগ গড়ে উঠবে।

 

বন্ধুগণ,

 

বিশ্বের বড় বড় পর্যটন গন্তব্য, আস্থার সঙ্গে যুক্ত কেন্দ্রগুলি একথা স্বীকার করে চলে যে আমাদের এখানে অধিকাংশ মানুষ তখনই আসবেন, যখন আমরা পর্যটকদের আধুনিক পরিষেবা দেব। আজ পর্যটকরা যেখানেই যান, তাঁদের পরিবারকে সঙ্গে নিয়ে যান। তখন তাঁদের 'ইজ অফ লিভিং' চাই এবং 'ইজ অফ ট্র্যাভেলিং'ও। গুজরাটের অনেক জায়গার শুধু ভারতের নয়, বিশ্বের বড় পর্যটন গন্তব্য গড়ে ওঠার ক্ষমতা রয়েছে। যদি এই মাতার মন্দিরের কথাই বলি, তাহলে ভক্তদের জন্য গুজরাটে একটি আস্ত সার্কিট রয়েছে। আমি সমস্ত মাতাদের স্থানের কথা উল্লেখ করছি না, আর গুজরাটের সমস্ত প্রান্তে এই শক্তিরূপেণ মাতারা গুজরাটকে নিরন্তর আশীর্বাদ প্রদান করেন। অম্বাজি রয়েছেন, পাওয়াগড়ও রয়েছেন, চোটিলা চামুণ্ডা মাতা রয়েছেন, উমিয়া মাতাজি রয়েছেন, কচ্ছ–এ মাতা নোমঢ় রয়েছেন – এমনই অনেক মায়েরা রয়েছেন। আমরা অনুভব করতে পারি যে গুজরাটে এক প্রকার শক্তির আবাস রয়েছে। অনেক প্রসিদ্ধ মন্দির রয়েছে।

 

আস্থার স্থানগুলি ছাড়াও গুজরাটে অনেক জায়গা রয়েছে যেগুলির পর্যটক আকর্ষণ ক্ষমতা অদ্ভূত। সম্প্রতি আপনারা দেখেছেন যে দ্বারকার শিবরাজপুর সামুদ্রিক বিচ আন্তর্জাতিক পরিচয় পেয়েছে, ‘ব্লু ফ্ল্যাগ' সার্টিফিকেশন পেয়েছে। এই স্থানগুলির উন্নয়ন করলে, সেখানে বেশি বেশি পর্যটক আসবেন, আর তাঁদের সঙ্গে কর্মসংস্থানের নতুন নতুন সুযোগও গড়ে উঠবে। আপনারা দেখুন, সর্দার সাহেবকে সমর্পণ করা স্ট্যাচু অফ ইউনিটি, বিশ্বের সর্বোচ্চ মূর্তি, এখন কত বড় পর্যটক আকর্ষণ কেন্দ্র হয়ে উঠছে।

 

যখন থেকে করোনা শুরু হয়েছে, তার আগেই প্রায় ৪৫ লক্ষেরও বেশি মানুষ স্ট্যাচু অফ ইউনিটি ঘুরে গেছেন। এত কম সময়ে ৪৫ লক্ষ মানুষের ঘুরে যাওয়া অনেক বড় ব্যাপার। এখন স্ট্যাচু অফ ইউনিটিকে আবার খোলা হয়েছে। এই সংখ্যা আবার দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এভাবে ছোট একটা উদাহরণ দিই। আমেদাবাদের কাঁকরিয়া ঝিল। একটা সময় ছিল যখন সেখান দিয়ে কেউ যেত না। অন্য পথ বেছে নিত। আমরা সেটিকে একটু পরিষ্কার–পরিচ্ছন্ন করিয়ে নতুনভাবে সাজিয়েছি। পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে কিছু পরিষেবা চালু করেছি। আর আজ পরিস্থিত এমন যে, সেখানে এখন বছরে ৭৫ লক্ষ মানুষ বেড়াতে আসেন। শুধু আমেদাবাদ শহরের মাঝখানে ৭৫ লক্ষ। মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত পরিবারের জন্য এই জায়গাটি অত্যন্ত আকর্ষণীয় স্থান হয়ে উঠেছে এবং অনেকেরই কর্মসংস্থানের সুযোগও গড়ে উঠেছে। এই সমস্ত পরিবর্তন পর্যটকদের ক্রমবর্ধনশীল সংখ্যা ও স্থানীয় মানুষদের আয় বৃদ্ধির ক্ষেত্রে অত্যন্ত সহায়ক। আর পর্যটন এমন একটা ক্ষেত্রে যেখানে ন্যূনতম পুঁজি লাগে আর অধিকতম মানুষের কর্মসংস্থান ও রোজগারের ব্যবস্থা হয়।

 

আমাদের যে গুজরাটি বন্ধুরা রয়েছে, আর আমি চাইব সারা বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা গুজরাটি ভাই ও বোনেরা, আজ তাঁদেরকে একটা অনুরোধ জানাতে চাইব, গুজরাটের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডার হয়ে সারা বিশ্বে আজ আপনারা ছড়িয়ে রয়েছে। আজ যখন গুজরাট নিজের নতুন নতুন আকর্ষণ কেন্দ্র গড়ে তুলছে, ভবিষ্যতে আরও গড়ে তুলবে, তখন সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে আমাদের গুজ্জু বন্ধুদের বলব তাঁরা নিজেদের সমস্ত বন্ধু–বান্ধব, প্রতিবেশীদের নিজের রাজ্যে আমন্ত্রণ জানান, সারা পৃথিবীকে আকর্ষিত করুন। গুজরাটের পর্যটন ক্ষেত্রগুলির সঙ্গে পরিচিত করান। আমাদের এই ভাবনা নিয়ে এগিয়ে চলতে হবে।

 

আরেকবার আমার গুজরাটের সমস্ত ভাই ও বোনেদের এই আধুনিক পরিষেবাগুলির জন্য অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানাই। মা অম্বার আশীর্বাদে গুজরাটের উন্নয়ন নতুন উচ্চতায় পৌঁছাক, এটাই আমার প্রার্থনা। গুজরাট সুস্থ থাকুক, গুজরাট ক্ষমতায়িত হোক। এই শুভকামনাগুলি জানিয়ে আপনাদের কৃতজ্ঞতা জানাই।

 

অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

 

'মন কি বাত' অনুষ্ঠানের জন্য আপনার আইডিয়া ও পরামর্শ শেয়ার করুন এখনই!
প্রধানমন্ত্রী ২০২২ সালের ‘পরীক্ষা পে চর্চা’ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন
Explore More
উত্তরপ্রদেশের বারাণসীতে কাশী বিশ্বনাথ ধাম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ

জনপ্রিয় ভাষণ

উত্তরপ্রদেশের বারাণসীতে কাশী বিশ্বনাথ ধাম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ
Retired Army officers hail Centre's decision to merge Amar Jawan Jyoti with flame at War Memorial

Media Coverage

Retired Army officers hail Centre's decision to merge Amar Jawan Jyoti with flame at War Memorial
...

Nm on the go

Always be the first to hear from the PM. Get the App Now!
...
PM condoles the deaths in the building fire at Tardeo, Mumbai
January 22, 2022
শেয়ার
 
Comments
Approves ex-gratia from PMNRF

The Prime Minister, Shri Narendra Modi has expressed sorrow on the deaths in the building fire at Tardeo in Mumbai. He conveyed condolences to the bereaved families and prayed for quick recovery of the injured.

He also approved ex-gratia of Rs. 2 lakh each from PMNRF to be given to the next of kin of those who have lost their live. The injured would be given Rs. 50,000 each:

The Prime Minister Office tweeted:

"Saddened by the building fire at Tardeo in Mumbai. Condolences to the bereaved families and prayers with the injured for the speedy recovery: PM @narendramodi

An ex-gratia of Rs. 2 lakh each from PMNRF would be given to the next of kin of those who have lost their lives due to the building fire in Tardeo, Mumbai. The injured would be given Rs. 50,000 each: PM @narendramodi"