শেয়ার
 
Comments

The great leader envisioned a world where every citizen has dignity and prosperity.

Upon reaching India in 1959, the Rev. Dr. Martin Luther King Jr. remarked, “To other countries I may go as a tourist, but to India I come as a pilgrim”. He added, “Perhaps, above all, India is the land where the techniques of nonviolent social change were developed that my people have used in Montgomery, Alabama, and elsewhere throughout the American South. We have found them to be effective and sustaining — they work!”

The guiding light whose inspiration got Dr. King to India was Mohandas Karamchand Gandhi, the Mahatma, the Great Soul. On Wednesday, we observe his 150th birth anniversary. Gandhi Ji, or Bapu, continues to give courage to millions globally.

Gandhian methods of resistance ignited a spirit of hope among several African nations. Dr. King remarked: “When I was visiting in Ghana, West Africa, Prime Minister Nkrumah told me that he had read the works of Gandhi and felt that nonviolent resistance could be extended there. We recall that South Africa has had bus boycotts also.”

Nelson Mandela referred to Gandhi as “the Sacred Warrior” and wrote, “His strategy of noncooperation, his assertion that we can be dominated only if we cooperate with our dominators, and his nonviolent resistance inspired anticolonial and antiracist movements internationally in our century.”

For Mr. Mandela, Gandhi was Indian and South African. Gandhi would have approved. He had the unique ability to become a bridge between some of the greatest contradictions in human society.

In 1925, Gandhi wrote in “Young India”: “It is impossible for one to be internationalist without being a nationalist. Internationalism is possible only when nationalism becomes a fact, i.e., when peoples belonging to different countries have organized themselves and are able to act as one man.” He envisioned Indian nationalism as one that was never narrow or exclusive but one that worked for the service of humanity.

Mahatma Gandhi also epitomized trust among all sections of society. In 1917, Ahmedabad in Gujarat witnessed a huge textile strike. When the conflict between the mill workers and owners escalated to a point of no return, it was Gandhi who mediated an equitable settlement.

Gandhi formed the Majoor Mahajan Sangh, an association for workers’ rights. At first sight, it may seem just another name of an organization but it reveals how small steps created a large impact. During those days, “Mahajan” was used as a title of respect for elites. Gandhi inverted the social structure by attaching the name “Mahajan” to “Majoor,” or laborers. With that linguistic choice, Gandhi enhanced the pride of workers.

And Gandhi combined ordinary objects with mass politics. Who else could have used a charkha, a spinning wheel, and khadi, Indian homespun cloth, as symbols of economic self-reliance and empowerment for a nation?

Who else could have created a mass agitation through a pinch of salt! During colonial rule, Salt Laws, which placed a new tax on Indian salt, had become a burden. Through the Dandi March in 1930, Gandhi challenged the Salt Laws. His picking up a small lump of natural salt from the Arabian Sea shore led to the historic civil disobedience movement.

There have been many mass movements in the world, many strands of the freedom struggle even in India, but what sets apart the Gandhian struggle and those inspired by him is the wide-scale public participation. He never held administrative or elected office. He was never tempted by power.

For him, independence was not absence of external rule. He saw a deep link between political independence and personal empowerment. He envisioned a world where every citizen has dignity and prosperity. When the world spoke about rights, Gandhi emphasized duties. He wrote in “Young India”: “The true source of rights is duty. If we all discharge our duties, rights will not be far to seek.” He wrote in the journal Harijan, “Rights accrue automatically to him who duly performs his duties.”

Gandhi gave us the doctrine of trusteeship, which emphasized the socio-economic welfare of the poor. Inspired by that, we should think about a spirit of ownership. We, as inheritors of the earth, are responsible for its well-being, including that of the flora and fauna with whom we share our planet.

In Gandhi, we have the best teacher to guide us. From uniting those who believe in humanity to furthering sustainable development and ensuring economic self-reliance, Gandhi offers solutions to every problem.

We in India are doing our bit. India is among the fastest when it comes to eliminating poverty. Our sanitation efforts have drawn global attention. India is also taking the lead in harnessing renewable resources through efforts like the International Solar Alliance, which has brought together several nations to leverage solar energy for a sustainable future. We want to do even more, with the world and for the world.

As a tribute to Gandhi, I propose what I call the Einstein Challenge. We know Albert Einstein’s famous words on Gandhi: “Generations to come will scarce believe that such a one as this ever in flesh and blood walked upon this earth.”

How do we ensure the ideals of Gandhi are remembered by future generations? I invite thinkers, entrepreneurs and tech leaders to be at the forefront of spreading Gandhi’s ideas through innovation.

Let us work shoulder to shoulder to make our world prosperous and free from hate, violence and suffering. That is when we will fulfill Mahatma Gandhi’s dream, summed up in his favorite hymn, “Vaishnava Jana To,” which says that a true human is one who feels the pain of others, removes misery and is never arrogant.

The world bows to you, beloved Bapu!

ডোনেশন
Explore More
আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

জনপ্রিয় ভাষণ

আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
FPIs remain bullish, invest over Rs 12,000 cr in first week of November

Media Coverage

FPIs remain bullish, invest over Rs 12,000 cr in first week of November
...

Nm on the go

Always be the first to hear from the PM. Get the App Now!
...
ডা. লোহিয়ার স্মরণে
March 26, 2019
শেয়ার
 
Comments

আজ দেশের মহান বিপ্লবীদের সম্মান করার দিন|
ভারত মাতার বীর সন্তান-ভগৎ সিং, সুখদেব এবং রাজগুরুকে তাঁদের চূড়ান্ত আত্মত্যাগের জন্য শ্রদ্ধা জানাচ্ছি|
জন্মজয়ন্তীতে উজ্জ্বল চিন্তাবিদ, ব্যতিক্রমী বুদ্ধিজীবী, বিপ্লবী এবং ধর্মপ্রাণ দেশপ্রেমিক, ডা. রাম মনোহর লোহিয়াকে প্রণাম|
গণ রাজনীতির প্রতি গভীর আস্থা ছিল প্রখর বুদ্ধির অধিকারী ডা. লোহিয়ার|
ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সময় যখন শীর্ষস্থানীয় নেতারা গ্রেফতার হয়েছিলেন, তখন একজন যুবক হিসেবে আন্দোলন অব্যাহত রাখার জন্য অনড় ছিলেন ডা. লোহিয়া| আন্দোলন বজায় রাখার জন্য উনি ভূগর্ভস্থ রেডিও স্টেশন চালু করেছিলেন|
গোয়া স্বাধীনতা আন্দোলনের ইতিহাসে ড. লোহিয়ার নাম স্বর্ণাক্ষরে অঙ্কিত রয়েছে|
যেখানেই দরিদ্র, নিপীড়িত, বঞ্চিত মানুষদের সাহায্যের দরকার ছিল, সেখানেই উপস্থিত ছিলেন ড. লোহিয়া|
ডা. লোহিয়ার চিন্তাধারা আজও আমাদের অনুপ্রাণিত করে| কৃষি ক্ষেত্রে আধুনিকীকরণ তথা অন্নদাতাদের ক্ষমতায়নের জন্য অনেক কিছুই করেছিলেন তিনি| ডা. লোহিয়ার চিন্তাধারা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে কিষাণ সম্মান নিধি, কৃষি সিচাই যোজনা, e-Nam, সোয়েল হেল্থ কার্ড-সহ অন্যান্য প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকদের স্বার্থে কাজ করে চলেছে এনডিএ সরকার|
সমাজে নারী ও পুরুষের মধ্যে বৈষম্য এবং জাতি বিভেদ দেখে অত্যন্ত ব্যথিত ছিলেন ডা. লোহিয়া| বিগত পাঁচ বছরে আমাদের ট্র্যাক রেকর্ড এটাই জানান দিচ্ছে যে, ডা. লোহিয়ার চিন্তাধারাকে সফল করার জন্য ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ’ আমাদের এই মন্ত্র উল্লেখযোগ্য দীর্ঘস্থায়ী অবদান রেখেছে| আজ উনি যদি থাকতেন, তাহলে এনডিএ সরকারের কাজ দেখে অবশ্যই খুশি হতেন|
সংসদের ভিতরে অথবা বাইরে ডা. লোহিয়া যখনই কথা বলতেন, তখনই ভয়ে কাঁপত কংগ্রেস|
ডা. লোহিয়া জানতেন, দেশের জন্য কংগ্রেস কতটা বিপজ্জনক| ১৯৬২ সালে তিনি বলেছিলেন, ‘কংগ্রেসের শাসনকালে কৃষি, শিল্প অথবা সেনাবাহিনীতে কোনও অগ্রগতি হয়নি|’
ডা. লোহিয়ার ওই শব্দ পরবর্তীকালের কংগ্রেস শাসনের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য| পরবর্তীকালের কংগ্রেস শাসনকালেও হয়রানির শিকার হন কৃষকরা, শিল্পের ক্ষেত্রে কোনও উত্সাহ দেখানো হয়নি (কংগ্রেস নেতাদের বন্ধু অথবা আত্মীয় ব্যতিত) এবং জাতীয় নিরাপত্তাও উপেক্ষিত ছিল|
কংগ্রেসের বিরোধিতা করা ডা. লোহিয়ার হৃদয়ে এবং আত্মায় ছিল| ড. লোহিয়ার প্রচেষ্টাতেই ১৯৬৭ সালের সাধারণ নির্বাচনে শক্তিশালী কংগ্রেস বড়সড় ধাক্কা খেয়েছিল| সেই সময় অটলজি বলেছিলেন, ‘ডা. লোহিয়ার প্রচেষ্টার কারণেই, কোনও কংগ্রেস শাসিত রাজ্যে প্রবেশ ছাড়াই হাওড়া-অমৃতসর মেইলে পুরো যাত্রা করা যেতে পারে|’
দুর্ভাগ্যজনক হল, রাজনীতিতে এখন এমন ধরনের ঘটনা প্রকাশ্যে আসছে যা দেখে ডা. লোহিয়া বিচলিত ও ব্যথিত হয়ে পড়তেন|
সেই সমস্ত দল যাঁরা ড. লোহিয়াকে নিজেদের আদর্শ বলেও হাঁফিয়ে যান না, তাঁরাই ড. লোহিয়ার আদর্শকে জলাঞ্জলি দিচ্ছেন| ডা. লোহিয়াকে অপমান করার জন্য তাঁরা কোনও সুযোগই হাতছাড়া করছেন না|
ওডিশার বর্ষীয়ান সমাজতান্ত্রিক নেতা শ্রী সুরেন্দ্রনাথ দ্বিবেদী বলেছিলেন, ‘ডা. লোহিয়া ব্রিটিশদের শাসনকালে যতবার জেলে গিয়েছিলেন, তার থেকেও অধিকবার কংগ্রেস সরকার তাঁকে জেলে পাঠিয়েছিল|’ আজ সেই সমস্ত দলগুলি, যাঁরা নিজেদের মিথ্যেভাবে ডা. লোহিয়ার অনুসরণকারী বলে দাবি করেন তাঁরা সেই কংগ্রেসের সঙ্গে সুবিধাবাদী মহা মিলাবট জোট করার জন্য উদগ্রীব| এই বিড়ম্বনা হাস্যকর এবং নিন্দনীয়|
ডা. লোহিয়া সর্বদা বিশ্বাস করতেন যে পরিবারতান্ত্রিক রাজনীতি গণতন্ত্রের পক্ষে বিপজ্জনক| আজ এসব দেখে তিনি অবশ্যই ব্যথিত হতেন, কারণ তাঁর ‘অনুসরণকারীদের’ কাছে প্রথমে পরিবার, তারপর দেশ|
ডা. লোহিয়ার মতে, যে ব্যক্তি 'সমতা', 'সামান্যতা' এবং 'সমত্ব ভাব' দিয়ে কাজ করে সে একজন যোগী। দুঃখের বিষয় হল এই যে, লোহিয়াবাদী বলা দলগুলি এই নীতিটি ভুলে গিয়েছে। তারা 'ক্ষমতা', 'স্বার্থ' এবং 'শোষণ'-এ বিশ্বাসী। এই দলগুলি ক্ষমতা দখল করা, যতটা সম্ভব জনসাধারণের ধনসম্পত্তি লুট করা এবং অন্যদের শোষণ করায় অভিজ্ঞ। দরিদ্র, দালিত, পিছিয়ে পড়া ও ওবিসি সম্প্রদায়ের পাশাপাশি নারীরাও তাদের শাসনের অধীনে নিরাপদ বোধ করে না, কারণ এই সমস্ত দলগুলি অপরাধমূলক ও সমাজবিরোধী কাজকর্মকে প্রশ্রয় দেয়।
ডা. লোহিয়া জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে সমতার পক্ষে ছিলেন। কিন্তু, ভোট ব্যাঙ্কের রাজনীতি করা দলগুলির আচরণ এর থেকে ভিন্ন ছিল। এই কারণেই তথাকথিত লোহায়াবাদী দলগুলি এনডিএ সরকারের তিন তালাক প্রথা বন্ধ করার প্রচেষ্টার বিরোধিতা করেছিল।
এই সমস্ত দলগুলিকে এই বিষয়টি স্পষ্ট করতে হবে যে, তাঁদের কাছে ড. লোহিয়ার চিন্তাধারা এবং আদর্শ বড় নাকি ভোটব্যাঙ্কের রাজনীতি?
আজ ১৩০ কোটি ভারতবাসী এমনই সব প্রশ্নের মুখোমুখি :
ড. লোহিয়ার সঙ্গে যাঁরা বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল, তাঁরা দেশের সেবা করবে তা কিভাবে আশা করা যায়?
আজ তাঁরা ড. রাম মনোহর লোহিয়ার নীতির সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করছেন, আগামীকাল তাঁরা ভারতের জনগণের সঙ্গেও বিশ্বাসঘাতকতা করবেন|