প্রধানমন্ত্রী রাজস্থানে চারটি নতুন মেডিকেল কলেজের শিলান্যাস করেছেন
মহামারীতে ভারত স্বনির্ভরতা ও শক্তি বৃদ্ধির সংকল্প গ্রহণ করেছে
আমরা দেশের স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে পরিবর্তন আনার জন্য একটি জাতীয় দৃষ্টিভঙ্গী গ্রহণ করেছি এবং জাতীয় স্বাস্থ্য নীতির লক্ষ্যে কাজ করছি
বিগত ৬-৭ বছরে ১৭০টিরও বেশি নতুন মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং ১০০টিরও বেশি নতুন মেডিকেল কলেজে দ্রুত কাজ শুরু হয়েছে
২০১৪ সালে দেশে মেডেকেলে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরে মোট আসন সংখ্যা ছিল ৮২ হাজার। আজ এই সংখ্যা বেড়ে ১ লক্ষ ৪০ হাজার হয়েছে
রাজস্থানের উন্নয়ন দেশের উন্নয়নে গতি আনবে

নমস্কার,

রাজস্থানের সুপুত্র আর ভারতের সবচাইতে বড় পঞ্চায়েত দেশের লোকসভার কাস্টডিয়ান আমাদের মাননীয় অধ্যক্ষ শ্রী ওম বিড়লাজি, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী শ্রী অশোক গেহলতজি, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী শ্রী মনসুখ মাণ্ডব্যজি, আমার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার অন্য সমস্ত সহযোগী, শ্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াতজি, ভূপেন্দ্র যাদবজি, অর্জুন রাম মেঘওয়ালজি, কৈলাশ চৌধুরিজি, ডঃ ভারতী পাওয়ারজি, ভগবন্ত খুবাজি, রাজস্থানের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ভগিনী বসুন্ধরা রাজেজি, বিরোধী দলনেতা গুলাবচাঁদ কাটারিয়াজি, রাজস্থান সরকারের অন্যান্য মন্ত্রীগণ, সাংসদগণ, বিধায়কগণ, অনুষ্ঠানে উপস্থিত অন্য সকল মাননীয় ব্যক্তিবর্গ আর আমার প্রিয় রাজস্থানের ভাই ও বোনেরা,

১০০ বছরের সবচাইতে বড় মহামারী বিশ্বের স্বাস্থ্যক্ষেত্রকে অনেক সমস্যাসঙ্কুল করে তুলেছে, আর এই মহামারী অনেক কিছু শিখিয়েছে এবং অনেক কিছু শেখাচ্ছেও। প্রত্যেক দেশ নিজের নিজের মতো করে এই সঙ্কট মোকাবিলায় ব্যস্ত রয়েছে। ভারত এই বিপর্যয় মোকাবিলায় আত্মনির্ভরতা, নিজের সামর্থ্য বৃদ্ধির সঙ্কল্প নিয়েছে। রাজস্থানে চারটি নতুন মেডিকেল কলেজের নির্মাণ শুরু করা আর জয়পুরে ইনস্টিটিউট অফ পেট্রোকেমিক্যালস টেকনলজির এই উদ্বোধন একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। আমি রাজস্থানের সমস্ত নাগরিককে অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানাই। আর আজ যখন আমার রাজস্থানের একটি বিশেষ কর্মসূচিতে প্রযুক্তির মাধ্যমে বক্তব্য রাখার সৌভাগ্য হয়েছে তখন আমি রাজস্থানের সেই সুপুত্র ও সুকন্যাদের অভিনন্দন জানাতে চাই যাঁরা অলিম্পিকে ভারতের ত্রিবর্ণ রঞ্জিত পতাকার সম্মান বৃদ্ধির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। এমনিতে, আমার রাজস্থানের ছেলে-মেয়েদেরকেও আজ আমি শুভেচ্ছা জানাতে চাই। আজ যখন এই অনুষ্ঠান চলছে তখন জয়পুর সহ দেশের ১০টি সিআইপিইটি কেন্দ্রে প্লাস্টিক এবং সংশ্লিষ্ট বর্জ্য ব্যবস্থাপনার নিয়মাবলী নিয়ে সচেতনতামূলক কর্মসূচি চলছে। এই উদ্যোগের জন্য আমি সংশ্লিষ্ট সকলকে, দেশের সমস্ত গণ্যমান্য নাগরিকদের অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানাই।

ভাই ও বোনেরা,

২০১৪ সালের পর কেন্দ্রীয় সরকার রাজস্থানে ২৩টি নতুন মেডিকেল কলেজের আবেদন মঞ্জুর করেছে। এর মধ্যে সাতটি মেডিকেল কলেজ ইতিমধ্যেই চালু হয়ে গেছে। আর আজ বনসওয়াড়া, সিরোহি, হনুমানগড় এবং দৌসায় নতুন মেডিকেল কলেজ নির্মাণের কাজ শুরু হল। আমি এই অঞ্চলগুলিতে বসবাসকারী জনগণকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানাই। আমি দেখেছি যে এখানকার যত জনপ্রতিনিধি রয়েছেন, আমাদের মাননীয় সাংসদদের সঙ্গে যখনই দেখা হয়, তাঁরা বলতে থাকেন যে রাজস্থানে মেডিকেল কলেজ তৈরি করলে কত লাভ হবে! তা সে আমার বন্ধু, ভাই কনক-মল কাটারাজি হন কিংবা আমাদের অগ্রজ সাংসদ দিদি জসকৌর মীনাজি, অথবা আমার অনেক পুরনো বন্ধু ভাই নিহালচাঁদ চৌহানজি বা আমার অর্ধেক গুজরাটি অর্ধেক রাজস্থানী ভাই দেওজি প্যাটেল – তাঁরা প্রত্যেকেই রাজস্থানে স্বাস্থ্য পরিকাঠামো উন্নয়নের ক্ষেত্রে অত্যন্ত সচেষ্ট ও সচেতন। আমার দৃঢ় বিশ্বাস, এই নতুন মেডিকেল কলেজের নির্মাণ রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় যথাসময়ে সম্পূর্ণ হবে।

বন্ধুগণ,

আমরা প্রত্যেকেই দেখেছি যে কয়েক দশক আগে দেশে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা কেমন ছিল। ২০০১-এ, আজ থেকে ২০ বছর আগে যখন গুজরাটের জনগণ আমাকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে সেবা করার সুযোগ দিয়েছিলেন তখন গুজরাটেও স্বাস্থ্য পরিষেবা অত্যন্ত সমস্যাসঙ্কুল ছিল। স্বাস্থ্য পরিকাঠামো থেকে শুরু করে চিকিৎসা-শিক্ষা, চিকিৎসা পরিষেবা – প্রত্যেক ক্ষেত্রে দ্রুতগতিতে কাজ করার প্রয়োজন ছিল। আমরা সেই চ্যালেঞ্জ স্বীকার করে নিয়ে সবাই মিলেমিশে পরিস্থিতি পরিবর্তনের চেষ্টা করি। সেই সময় গুজরাটে ‘মুখ্যমন্ত্রী অমৃতম যোজনা’র মাধ্যমে গরীব পরিবারগুলিকে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনামূল্যে চিকিৎসার সুবিধা দিয়ে এই অভিযান শুরু হয়েছিল। গর্ভবতী মহিলাদের হাসপাতালে প্রসবের চিরঞ্জীবি যোজনার মাধ্যমে উৎসাহিত করা হয়েছিল। ফলে, মা ও বোনেদের জীবন রক্ষায় অনেক বেশি সাফল্য এসেছে। চিকিৎসা-শিক্ষার ক্ষেত্রেও বিগত দু’দশকে অনেক চেষ্টার ফলে গুজরাটে মেডিকেল আসন সংখ্যা প্রায় ছয়গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

বন্ধুগণ,

মুখ্যমন্ত্রী রূপে দেশের স্বাস্থ্যক্ষেত্রে যে ত্রুটিগুলি আমি অনুভব করেছিলাম, বিগত ৬-৭ বছরে সেগুলি দূর করার নিরন্তর চেষ্টা করে গেছি। আর আমরা সবাই জানি, আমাদের সংবিধানে যে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো রয়েছে তাতে স্বাস্থ্য রাজ্যের বিষয়, রাজ্যের দায়িত্ব। কিন্তু আমি দীর্ঘকাল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী থেকে এক্ষেত্রে সমস্ত সীমাবদ্ধতা ও সমস্যাগুলি সম্পর্কে সুপরিচিত। সেজন্য আমি কেন্দ্রীয় সরকারে নেতৃত্বের সুযোগ পেয়ে স্বাস্থ্য রাজ্যের দায়িত্বে থাকা সত্ত্বেও এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের যে ধরনের কাজ করা উচিৎ বলে মনে করতাম সেই লক্ষ্যে কাজ করা শুরু করেছি। আমাদের দেশে সবচাইতে বড় সমস্যা ছিল দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা অনেক বেশি বিভাজিত ছিল। ভিন্ন ভিন্ন রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় জাতীয় স্তরের যোগাযোগ এবং সম্মিলিত দৃষ্টিকোণের অভাব ছিল। ভারতের মতো দেশে যেখানে উন্নত স্বাস্থ্য পরিষেবা রাজ্যের রাজধানী কিংবা কিছু মেট্রো মহানগরীগুলির মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল, যে রাজ্যগুলি থেকে গরীবদের রোজগারের জন্য অন্য রাজ্যে যেতে হয়, সেখানে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সীমাকে রাজ্যের স্বাস্থ্য প্রকল্পের মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখে খুব একটা লাভ হচ্ছিল না। তেমনই, প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিষেবা আর বড় হাসপাতালগুলির মধ্যে একটি বড় ব্যবধান দেখা যেত। আমাদের পারস্পরিক চিকিৎসা পদ্ধতি এবং আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতির মধ্যেও যোগাযোগ ও ভারসাম্যের অভাব ছিল। সুশাসনের স্বার্থে এই ত্রুটিগুলি দূর করা অত্যন্ত প্রয়োজন ছিল। দেশের স্বাস্থ্যক্ষেত্রকে রূপান্তরিত করতে আমরা একটা জাতীয় দৃষ্টিকোণ, একটি নতুন জাতীয় স্বাস্থ্যনীতি রচনার কাজ করেছি। স্বচ্ছ ভারত অভিযান থেকে শুরু করে আয়ুষ্মান ভারত আর এখন আয়ুষ্মান ভারত ডিজিটাল মিশন পর্যন্ত এরকম অনেক প্রচেষ্টা এর অংশ। আয়ুষ্মান ভারত যোজনার মাধ্যমে এখন পর্যন্ত রাজস্থান থেকে প্রায় ৩.৫ লক্ষ মানুষ বিনামূল্যে চিকিৎসার সুযোগ পেয়েছেন। আজ রাজস্থানের গ্রামগঞ্জে স্বাস্থ্য পরিষেবা মজবুত করার জন্য প্রায় ২,৫০০ হেলথ অ্যান্ড ওয়েলনেস সেন্টার কাজ করা শুরু করে দিয়েছে। সরকার প্রতিরোধী স্বাস্থ্য পরিষেবার ওপর বেশি জোর দিচ্ছে। সেজন্য আমরা নতুন আয়ুষ মন্ত্রক গড়ে তুলেছি। আয়ুর্বেদ এবং যোগকেও নিরন্তর উৎসাহ যোগাচ্ছি।

ভাই ও বোনেরা,

স্বাস্থ্য পরিকাঠামো নির্মাণের শ্লথ গতি থেকে আরেকটি বড় সমস্যা উদ্ভূত হয়। এইমস থেকে শুরু করে মেডিকেল কলেজ কিংবা এইমস-এর মতোই সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের নেটওয়ার্ক দেশের বিভিন্ন প্রান্তে দ্রুতগতিতে গড়ে তোলা প্রয়োজন রয়েছে। আজ আমরা অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে বলতে পারি যে ২০১৪সালে ছয়টি এইমস থেকে এগিয়ে আজ ভারত ২২টিরও বেশি এইমস-এর মজবুত নেটওয়ার্কের দিকে এগিয়ে চলেছে। এই ৬-৭ বছরে ১৭০টিরও বেশি নতুন মেডিকেল কলেজ গড়ে উঠেছে আর ১০০টিরও বেশি নতুন মেডিকেল কলেজ নির্মাণের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। ২০১৪ সালে দেশে মেডিকেল আন্ডার-গ্র্যাজুয়েট এবং পোস্ট গ্র্যাজুয়েটের মোট আসন ছিল প্রায় ৮২ হাজার। আজ এই আসন সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ১ লক্ষ ৪০ হাজার হয়েছে। অর্থাৎ আজ অনেক বেশি তরুণ-তরুণী চিকিৎসক হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। আগের থেকে অনেক বেশি চিকিৎসক তৈরি হচ্ছে। চিকিৎসা-শিক্ষায় এই দ্রুত উন্নয়নের ফলে রাজস্থানও অনেক লাভবান হয়েছে। এই সাত বছরে রাজস্থানে মেডিকেল আসন সংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে। আন্ডার-গ্র্যাজুয়েট আসন ২ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৪ হাজারেরও বেশি হয়েছে আর পোস্ট গ্র্যাজুয়েটের আসন রাজস্থানে ১ হাজারেরও কম ছিল। যা এখন প্রায় ২,১০০ হয়েছে।

ভাই ও বোনেরা,

আজ দেশের প্রত্যেক জেলায় একটি মেডিকেল কলেজ কিংবা স্নাতকোত্তর চিকিৎসা-শিক্ষা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান স্থাপনের প্রয়োজন রয়েছে। এর জন্য চিকিৎসা-শিক্ষা সংক্রান্ত প্রশাসন থেকে শুরু করে অন্যান্য নীতি, আইন ও প্রতিষ্ঠানগুলিতে বিগত কয়েক বছরে বড় সংস্কার আনা হয়েছে। আমরা দেখেছি, আগে যে মেডিকেল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া (এমসিআই) ছিল কিভাবে তার বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন উঠত, নানারকম আরোপ লাগানো হত। সংসদেও ঘন্টার পর ঘন্টা তা নিয়ে বিতর্ক হত। স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন উঠত। এর অনেক বড় প্রভাব দেশের চিকিৎসা-শিক্ষার উৎকর্ষ ও স্বাস্থ্য পরিষেবায় প্রতিফলিত হত। অনেক বছর ধরে প্রত্যেক সরকার ভাবত যে কিছু করা উচিৎ। পরিবর্তন আনার জন্য কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিৎ। কিন্তু তেমনটা হয়ে উঠত না। আমিও এ কাজ করতে গিয়ে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছি। সংসদেও বিগত সরকারের অনেকে রয়েছেন যাঁরা এটা করতে চাইছিলেন কিন্তু করতে পারছিলেন না। অনেক গোষ্ঠী নানারকম প্রতিকূলতা তৈরি করছিল। অনেক সমস্যার সমাধান করে অবশেষে আমরা সাফল্য পেয়েছি। সেজন্য আমাদেরকেও অনেক পরস্পর বিরোধিতার সম্মুখীন হতে হয়েছে। এখন এই ব্যবস্থার দায়িত্ব ন্যাশনাল মেডিকেল কমিশন-এর হাতে ন্যস্ত হয়েছে। এর অনেক ভালো প্রভাব দেশের স্বাস্থ্য সুরক্ষা, মানবসম্পদ এবং স্বাস্থ্য পরিষেবায় পরিলক্ষিত হতে শুরু হয়েছে।

বন্ধুগণ,

অনেক দশক পুরনো স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় আজকের প্রয়োজনীয়তা অনুসারে পরিবর্তন জরুরি। স্বাস্থ্য-শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য পরিষেবার মধ্যে যে পার্থক্য রয়েছে সেটিকে ক্রমাগত কমানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। নতুন বিশেষজ্ঞ ও নতুন নতুন চিকিৎসক এবং নতুন স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষিত করার জন্য বড় হাসপাতাল, তা সে সরকারিই হোক কিংবা বেসরকারি – সেগুলিকে ব্যবহার করার দিকে সরকার জোর দিচ্ছে। ৩-৪ দিন আগে যে আয়ুষ্মান ভারত ডিজিটাল মিশন শুরু হয়েছে তা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে স্বাস্থ্য পরিষেবা পৌঁছে দিতে অনেক সাহায্য করবে। ভালো হাসপাতাল, টেস্টিং ল্যাব, ফার্মেসি, ডাক্তারদের অ্যাপয়েন্টমেন্ট – সবই এখন এক ক্লিকে হবে। এর মাধ্যমে রোগীরা তাঁদের হেলথ রেকর্ড সামলে রাখার সুবিধাও পাবেন।

ভাই ও বোনেরা,

স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত দক্ষ মানবসম্পদ স্বাস্থ্য পরিষেবাকে প্রত্যক্ষভাবে প্রভাবিত করবে। এটা আমরা করোনাকালে আরও বেশি করে অনুভব করেছি। কেন্দ্রীয় সরকারের ‘সবাইকে টিকা, বিনামূল্যে টিকা’ অভিযানের সাফল্য এই অভিজ্ঞতারই প্রতিফলন। আজ পর্যন্ত ভারতে করোনা টিকার ৮৮ কোটিরও বেশি ডোজ দেওয়া হয়েছে। রাজস্থানেও ৫ কোটির বেশি টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। হাজার হাজার টিকা কেন্দ্রে আমাদের চিকিৎসক, সেবিকা ও স্বাস্থ্যকর্মীরা ক্রমাগত টিকাকরণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। চিকিৎসাক্ষেত্রে আমাদের দেশের সামর্থ্যকে আরও বাড়াতে হবে। গ্রাম এবং গরীব পরিবার থেকে উঠে আসা তরুণ-তরুণীদের জন্য শুধু ইংরেজি ভাষায় চিকিৎসা এবং প্রযুক্তি-শিক্ষার পড়াশোনা একটি বড় বাধা। এখন নতুন জাতীয় শিক্ষানীতি অনুসারে হিন্দি এবং অন্যান্য ভারতীয় ভাষায় চিকিৎসাশাস্ত্র পড়াশোনার পথও প্রশস্ত হয়েছে। রাজস্থানের গ্রামে গরীব পরিবারগুলির মায়েরা তাঁদের সন্তানদের নিয়ে যে স্বপ্ন দেখেন তা এখন আরও সহজে বাস্তবায়িত হবে। গরীবের ছেলে-মেয়েরাও, যাঁরা ইংরেজিমাধ্যম স্কুলে পড়ার সুযোগ পান না, তাঁরাও এখন চিকিৎসক হয়ে মানবতার সেবা করবেন। চিকিৎসা-শিক্ষার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সুযোগ যেন সমাজের প্রত্যেক অংশের মানুষ সমানভাবে পান তার প্রয়োজন রয়েছে। চিকিৎসা-শিক্ষায় ওবিসি এবং আর্থিক রূপে দুর্বল সাধারণ বর্গের তরুণ-তরুণীদের সংরক্ষণ প্রদানের পেছনে এই ভাবনাই রয়েছে।

বন্ধুগণ,

স্বাধীনতার এই অমৃতকালে উচ্চস্তরের দক্ষতা শুধু যে ভারতের শক্তি বাড়াবে তাই নয়, আত্মনির্ভর ভারতের সঙ্কল্পকে বাস্তবায়িত করার ক্ষেত্রেও বড় ভূমিকা পালন করবে। সবচাইতে দ্রুতগতিতে বিকশিত হওয়া শিল্পগুলির মধ্যে অন্যতম পেট্রোকেমিক্যাল শিল্পের জন্য দক্ষ মানবসম্পদ আজকের প্রয়োজন। রাজস্থানে নতুন গড়ে ওঠা ইনস্টিটিউট অফ পেট্রোকেমিক্যাল টেকনলজি এক্ষেত্রে প্রত্যেক বছর শত শত যুবককে নতুন সম্ভাবনার সঙ্গে জুড়বে। পেট্রোকেমিক্যালের ব্যবহার আজকাল কৃষি, স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রি থেকে শুরু করে জীবনের অনেক ক্ষেত্রে বৃদ্ধি পেয়েছে। সেজন্য আগামী বছরগুলিতে দক্ষ যুবক-যুবতীদের জন্য রোজগারের অনেক সুযোগ গড়ে উঠবে।

বন্ধুগণ,

আজ যখন আমরা এই পেট্রোকেমিক্যাল প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধন করছি, তখন আমার ১৩-১৪ বছর আগের সেই দিনটির কথা মনে পড়ছে যখন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী রূপে গুজরাটে আমি পেট্রোলিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবনা নিয়ে কাজ শুরু করেছিলাম। তখন কিছু মানুষ এই ভাবনা নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করেছিলেন। তাঁরা বলছিলেন, এরকম বিশ্ববিদ্যালয়ের কি প্রয়োজন, এটা দিয়ে কি হবে? এখানে পড়ার জন্য ছাত্রছাত্রী কোথা থেকে আসবে? কিন্তু আমারা এই ভাবনাকে ত্যাগ করিনি। রাজধানী গান্ধীনগরে জমি খোঁজা হয়েছে আর তারপর পণ্ডিত দীনদয়াল পেট্রোলিয়াম বিশ্ববিদ্যালয় বা পিডিপিইউ চালু হয়েছে। অত্যন্ত কম সময়ে পিডিপিইউ প্রমাণ করেছে যে তার সামর্থ্য কতটা। গোটা দেশের ছাত্রছাত্রীরা সেখানে পড়ার জন্য ভিড় লাগিয়ে দিয়েছে। এখন এই বিশ্ববিদ্যালয়ের দৃষ্টিভঙ্গি আরও বিস্তৃত হয়েছে। এখন এই বিশ্ববিদ্যালয়কে পণ্ডিত দীনদয়াল এনার্জি ইউনিভার্সিটি বা সিডিইইউ-তে পরিণত করা হয়েছে। এ ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভারতের যুব সম্প্রদায়কে পরিবেশ-বান্ধব, স্বচ্ছ শক্তি উৎপাদন আবিষ্কারের পথ দেখাচ্ছে। এক্ষেত্রে অনেক বেশি বিশেষজ্ঞ তৈরি হচ্ছে।

বন্ধুগণ,

বাড়মের-এ রাজস্থান রিফাইনারি প্রজেক্ট গড়ে তোলার কাজও দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। এই প্রকল্পে ৭০ হাজার কোটি টাকারও বেশি ইতিমধ্যেই বিনিয়োগ হয়েছে। ইনস্টিটিউট অফ পেট্রোকেমিক্যাল টেকনলজি থেকে পড়াশোনা সেরে যে পেশাদাররা বেরিয়ে আসবেন, তাঁদের জন্য এই প্রকল্প অনেক নতুন সুযোগ গড়ে তুলবে। রাজস্থানে যে সিটি গ্যাস সরবরাহের কাজ চলছে, সেখানেও এই যুবক-যুবতীদের অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। ২০১৪ সালের আগে রাজস্থানের মাত্র একটি শহরেই সিটি গ্যাস সরবরাহ মঞ্জুর করা হয়েছিল। আজ রাজস্থানের ১৭টি জেলায় সিটি গ্যাস সরবরাহ নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার কাজ চলছে। আগামী বছরগুলিতে এই রাজ্যের প্রত্যেক জেলায় পাইপের মাধ্যমে গ্যাস পৌঁছে দেওয়ার নেটওয়ার্ক চালু হবে।

ভাই ও বোনেরা,

রাজস্থানের একটা বড় অংশ মরুভূমি আর সীমান্তবর্তী এলাকা। কঠিন ভৌগোলিক পরিস্থিতির কারণে আমাদের মা-বোনেদের অনেক প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে হয়। অনেক বছর ধরে আমি রাজস্থানের বিভিন্ন প্রান্তে যাতায়াত করছি। আমি দেখেছি যে শৌচালয়, বিদ্যুৎ এবং রান্নার গ্যাস সংযোগের অভাবে মা-বোনেদের কত সমস্যা হত। আজ দরিদ্র থেকে দরিদ্রতর মানুষের বাড়িতে শৌচালয় বিদ্যুৎ এবং রান্নার গ্যাস সংযোগ পৌঁছে দেওয়ার ফলে তাঁদের জীবন অনেক সহজ হয়েছে। পানীয় জল তো প্রায় প্রতিদিনই রাজস্থানের মা-বোনেদের ধৈর্য্যের পরীক্ষা নেয়। আজ জল জীবন মিশনের মাধ্যমে রাজস্থানের ২১ লক্ষেরও বেশি পরিবারে নলের মাধ্যমে জল পৌঁছনো শুরু হয়েছে। ‘প্রত্যেক বাড়িতে জল’ অভিযান রাজস্থানের মা-বোন ও কন্যাদের পায়ে বছরের পর বছর ধরে যে ফোস্কা পড়তো তাতে যেন মলম লাগানোর কাজ; ক্ষুদ্র হলেও একটি সৎ প্রচেষ্টা।

বন্ধুগণ,

রাজস্থানের উন্নয়ন নিশ্চিতভাবেই ভারতের উন্নয়নকে গতি প্রদান করবে। যখন রাজস্থানের জনগণ, গরীব ও মধ্যবিত্তদের জীবন আরও সহজ হয়, যখন তাঁদের ‘ইজ অফ লিভিং’ বৃদ্ধি পায় তখন আমার খুব আনন্দ হয়। বিগত ৬-৭ বছরে কেন্দ্রীয় সরকারের গৃহ নির্মাণ প্রকল্পের মাধ্যমে রাজস্থানের দরিদ্রদের জন্য ১৩ লক্ষেরও বেশি পাকা ঘর তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। পিএম কিষাণ সম্মান নিধির মাধ্যমে রাজস্থানের ৭৪ লক্ষেরও বেশি কৃষক পরিবারের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা প্রত্যক্ষ হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ফসল বিমা যোজনার মাধ্যমে রাজ্যের কৃষকদের ১৫ হাজার কোটি টাকারও বেশি ক্লেমের টাকা দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

বন্ধুগণ,

সীমান্তবর্তী রাজ্য হওয়ার ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং কেন্দ্রীয় সরকারের দেশের সীমান্ত অঞ্চল উন্নয়নের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার থেকেও রাজস্থান লাভবান হচ্ছে। জাতীয় মহাসড়ক নির্মাণ থেকে শুরু করে নতুন নতুন রেললাইনের কাজ, সিটি গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন, এরকম কয়েক ডজন প্রকল্পের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। দেশের রেলওয়ে ব্যবস্থায় যে ব্যাপক পরিবর্তন এনেছে ডেডিকেটেড ফ্রেট করিডর, তার একটা বড় অংশ রাজস্থান ও গুজরাটের ওপর দিয়ে গেছে। এই প্রকল্পও নতুন কর্মসংস্থানের অনেক সম্ভাবনা গড়ে তুলছে।

ভাই ও বোনেরা,

রাজস্থানের সামর্থ্য গোটা দেশকে প্রেরণা যোগায়। আমাদের রাজস্থানের সামর্থ্যকে আরও বাড়াতে হবে। তাহলেই দেশও নতুন উচ্চতায় পৌঁছবে। এটা আমাদের সকলের প্রচেষ্টাতেই সম্ভব। ‘সবকা প্রয়াস’! স্বাধীনতার ৭৫ বর্ষ পূর্তি উৎসবের সময় আমাদের এই ‘সবকা প্রয়াস’ মন্ত্র নিয়ে অনেক উজ্জীবিত হয়ে এগিয়ে যেতে হবে। ভারতের স্বাধীনতার এই অমৃতকাল যাতে রাজস্থানের উন্নয়নেরও সোনালী সময় হয়ে ওঠে – এই শুভকামনা জানাই। একটু আগেই রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীর কথা শুনছিলাম। তিনি রাজ্য সরকারের কাজের একটি দীর্ঘ তালিকা আমাদের শুনিয়েছেন। সেজন্য আমি রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীজিকে অনেক ধন্যবাদ জানাই, কারণ, তিনি আমাকে এতটা ভরসা করেন, আর গণতন্ত্রের এটাই তো বড় শক্তি। তাঁর ও আমার রাজনৈতিক বিচারধারা ও দল আলাদা। কিন্তু তবুও অশোকজি আমার ওপর ভরসা করেন। সেজন্য আজ তিনি মন খুলে অনেক কথা বলেছেন। এই বন্ধুত্ব, এই বিশ্বাস, এই ভরসা – এটাই গণতন্ত্রের অনেক বড় শক্তি। আমি আরেকবার রাজস্থানের জনগণকে হৃদয় থেকে অভিনন্দন জানাই। অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানাই।

ধন্যবাদ!

Explore More
ভারতের ৭৭তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে লালকেল্লার প্রাকার থেকে দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ

জনপ্রিয় ভাষণ

ভারতের ৭৭তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে লালকেল্লার প্রাকার থেকে দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ
India's overall SDG score on national index up in 2023-24 at 71: NITI Aayog report

Media Coverage

India's overall SDG score on national index up in 2023-24 at 71: NITI Aayog report
NM on the go

Nm on the go

Always be the first to hear from the PM. Get the App Now!
...
Role of newspapers is crucial in the journey to Viksit Bharat: PM Modi at inauguration of INS Towers in Mumbai
July 13, 2024
“Role of newspapers is very important in the journey to Viksit Bharat in the next 25 years”
“The citizens of a country who gain confidence in their capabilities start achieving new heights of success. The same is happening in India today”
“INS has not only been a witness to the ups and downs of India’s journey but also lived it and communicated it to the people”
“A country’s global image directly affects its economy. Indian publications should enhance their global presence”

महाराष्ट्र के गवर्नर श्रीमान रमेश बैस जी, मुख्यमंत्री श्रीमान एकनाथ शिंदे जी, उप मुख्यमंत्री भाई देवेंद्र फडणवीस जी, अजित दादा पवार जी, इंडियन न्यूज़पेपर सोसाइटी के प्रेसिडेंट भाई राकेश शर्मा जी, सभी वरिष्‍ठ महानुभाव, देवियों और सज्जनों!

सबले पहले मैं इंडियन न्यूज़पेपर सोसाइटी के सभी सदस्यों को बहुत-बहुत बधाई देता हूं। आज आप सभी को मुंबई में एक विशाल और आधुनिक भवन मिला है। मैं आशा करता हूँ, इस नए भवन से आपके कामकाज का जो विस्तार होगा, आपकी जो Ease of Working बढ़ेगी, उससे हमारे लोकतंत्र को भी और मजबूती मिलेगी। इंडियन न्यूज़पेपर सोसाइटी तो आज़ादी के पहले से अस्तित्व में आने वाली संस्‍थाओं में से एक है और इसलिए आप सबने देश की यात्रा के हर उतार-चढ़ाव को भी बहुत बारीकी से देखा है, उसे जिया भी है, और जन-सामान्‍य को बताया भी है। इसलिए, एक संगठन के रूप में आपका काम जितना प्रभावी बनेगा, देश को उसका उतना ही ज्यादा लाभ मिलेगा।

साथियों,

मीडिया केवल देश के हालातों का मूकदर्शक भर नहीं होता। मीडिया के आप सभी लोग, हालातों को बदलने में, देश को दिशा देने में एक अहम रोल निभाते हैं। आज भारत एक ऐसे कालखंड में है, जब उसकी अगले 25 वर्षों की यात्रा बहुत अहम है। इन 25 वर्षों में भारत विकसित बने, इसके लिए पत्र-पत्रिकाओं की भूमिका भी उतनी ही बड़ी है। ये मीडिया है, जो देश के नागरिकों को जागरूक करता है। ये मीडिया है, जो देश के नागरिकों को उनके अधिकार याद दिलाता रहता है। और यही मीडिया है, जो देश के लोगों को ये एहसास दिलाता है कि उनका सामर्थ्य क्या है। आप भी देख रहे हैं, जिस देश के नागरिकों में अपने सामर्थ्य को लेकर आत्मविश्वास आ जाता है, वो सफलता की नई ऊंचाई प्राप्त करने लगते हैं। भारत में भी आज यही हो रहा है। मैं एक छोटा सा उदाहरण देता हूं आपको। एक समय था, जब कुछ नेता खुलेआम कहते थे कि डिजिटल ट्रांजेक्शन भारत के लोगों के बस की बात नहीं है। ये लोग सोचते थे कि आधुनिक टेक्नोलॉजी वाली चीजें इस देश में नहीं चल पाएंगी। लेकिन भारत की जनता की सूझबूझ और उनका सामर्थ्य दुनिया देख रही है। आज भारत डिजिटल ट्रांजेक्शन में दुनिया में बड़े-बड़े रिकॉर्ड तोड़ रहा है। आज भारत के UPI की वजह से आधुनिक Digital Public Infrastructure की वजह से लोगों की Ease of Living बढ़ी है, लोगों के लिए एक स्थान से दूसरे स्थान तक पैसे भेजना आसान हुआ है। आज दुनियाभर में हमारे जो देशवासी रहते हैं, खासकर के गल्‍फ के देशों में, वो सबसे ज्यादा रेमिटेंस भेज रहे हैं और उनको जो पहले खर्च होता था, उसमें से बहुत कमी आ गई है और इसके पीछे एक वजह ये डिजिटल रेवेल्यूशन भी है। दुनिया के बड़े-बड़े देश हमसे टेक्नोलॉजी और हमारे implementation model को जानना-समझने को प्रयास कर रहे हैं। ये इतनी बड़ी सफलता सिर्फ सरकार की है, ऐसा नहीं है। इस सफलता में आप सभी मीडिया के लोगों की भी सहभागिता है औऱ इसलिए ही आप सब बधाई के भी पात्र हैं।

साथियों,

मीडिया की स्वाभाविक भूमिका होती है, discourse create करना, गंभीर विषयों पर चर्चाओं को बल देना। लेकिन, मीडिया के discourse की दिशा भी कई बार सरकार की नीतियों की दिशा पर निर्भर होती है। आप जानते हैं, सरकारों में हमेशा हर कामकाज के अच्छा है, बुरा है, लेकिन वोट का गुणा-भाग, उसकी आदत लगी ही रहती है। हमने आकर के इस सोच को बदला है। आपको याद होगा, हमारे देश में दशकों पहले बैंकों का राष्ट्रीयकरण किया गया था। लेकिन, उसके बाद की सच्चाई ये थी कि 2014 तक देश में 40-50 करोड़ गरीब ऐसे थे, जिनका बैंक अकाउंट तक नहीं था। अब जब राष्ट्रीयकरण हुआ तब जो बातें कही गई और 2014 में जो देखा गया, यानी आधा देश बैंकिंग सिस्टम से बाहर था। क्या कभी हमारे देश में ये मुद्दा बना? लेकिन, हमने जनधन योजना को एक मूवमेंट के तौर पर लिया। हमने करीब 50 करोड़ लोगों को बैंकिंग सिस्टम से जोड़ा। डिजिटल इंडिया और भ्रष्टाचार विरोधी प्रयासों में यही काम हमारा सबसे बड़ा माध्यम बना है। इसी तरह, स्वच्छता अभियान, स्टार्टअप इंडिया, स्टैंडअप इंडिया जैसे अभियानों को अगर हम देखेंगे! ये वोट बैंक पॉलिटिक्स में कहीं फिट नहीं होते थे। लेकिन, बदलते हुए भारत में, देश के मीडिया ने इन्हें देश के नेशनल discourse का हिस्सा बनाया। जो स्टार्ट-अप शब्द 2014 के पहले ज्यादातर लोग जानते भी नहीं थे, उन्हें मीडिया की चर्चाओं ने ही घर-घर तक पहुंचा दिया है।

साथियों,

आप मीडिया के दिग्गज हैं, बहुत अनुभवी हैं। आपके निर्णय देश के मीडिया को भी दिशा देते हैं। इसलिए आज के इस कार्यक्रम में मेरे आपसे कुछ आग्रह भी हैं।

साथियों,

किसी कार्यक्रम को अगर सरकार शुरू करती है तो ये जरूरी नहीं है कि वो सरकारी कार्यक्रम है। सरकार किसी विचार पर बल देती है तो जरूरी नहीं है कि वो सिर्फ सरकार का ही विचार है। जैसे कि देश ने अमृत महोत्सव मनाया, देश ने हर घर तिरंगा अभियान चलाया, सरकार ने इसकी शुरुआत जरूर की, लेकिन इसको पूरे देश ने अपनाया और आगे बढ़ाया। इसी तरह, आज देश पर्यावरण पर इतना ज़ोर दे रहा है। ये राजनीति से हटकर मानवता के भविष्य का विषय है। जैसे कि, अभी ‘एक पेड़ मां के नाम’, ये अभियान शुरू हुआ है। भारत के इस अभियान की दुनिया में भी चर्चा शुरू हो गई है। मैं अभी जी7 में गया था जब मैंने इस विषय को रखा तो उनके लिए बड़ी उत्सुकता थी क्योंकि हर एक को अपनी मां के प्रति लगाव रहता है कि उसको लगता है कि ये बहुत क्लिक कर जाएगा, हर कोई कह रहा था। देश के ज्यादा से ज्यादा मीडिया हाउस इससे जुड़ेंगे तो आने वाली पीढ़ियों का बहुत भला होगा। मेरा आग्रह है, ऐसे हर प्रयास को आप देश का प्रयास मानकर उसे आगे बढ़ाएं। ये सरकार का प्रयास नहीं है, ये देश का है। इस साल हम संविधान का 75वां वर्ष भी मना रहे हैं। संविधान के प्रति नागरिकों में कर्तव्य बोध बढ़े, उनमें जागरूकता बढ़े, इसमें आप सभी की बहुत बड़ी भूमिका हो सकती है।

साथियों,

एक विषय है टूरिज्म से जुड़ा हुआ भी। टूरिज्म सिर्फ सरकार की नीतियों से ही नहीं बढ़ता है। जब हम सब मिलकर देश की ब्रांडिंग और मार्केटिंग करते हैं तो, देश के सम्मान के साथ-साथ देश का टूरिज़्म भी बढ़ता है। देश में टूरिज्म बढ़ाने के लिए आप लोग अपने तरीके निकाल सकते हैं। अब जैसे मान लीजिए, महाराष्ट्र के सभी अखबार मिलकर के तय करें कि भई हम सितम्बर महीने में बंगाल के टूरिज्म को प्रमोट करेंगे अपनी तरफ से, तो जब महाराष्ट्र के लोग चारों तरफ जब बंगाल-बंगाल देखें तो उनको करें कि यार इस बार बंगाल जाने का कार्यक्रम बनाएं, तो बंगाल का टूरिज्‍म बढ़ेगा। मान लीजिए आप तीन महीने के बाद तय करें कि भई हम तमिलनाडु की सारी चीजों पर सब मिलकर के, एक ये करें के एक दूसरा करें ऐसा नहीं, तमिलनाडु फोकस करेंगे। आप देखिए एक दम से महाराष्ट्र के लोग टूरिज्‍म में जाने वाले होंगे, तो तमिलनाडु की तरफ जाएंगे। देश के टूरिज्म को बढ़ाने का एक तरीका हो और जब आप ऐसा करेंगे तो उन राज्यों में भी महाराष्ट्र के लिए ऐसे ही कैम्पेन शुरू होंगे, जिसका लाभ महाराष्‍ट्र को मिलेगा। इससे राज्यों में एक दूसरे के प्रति आकर्षण बढ़ेगा, जिज्ञासा बढ़ेगी और आखिरकार इसका फायदा जिस राज्य में आप ये इनिशिएटिव ले रहे हें और बिना कोई एक्‍स्‍ट्रा प्रयास किए बिना आराम से होने वाला काम है।

साथियों,

आप सभी से मेरा आग्रह अपनी ग्लोबल प्रेजेंस बढ़ाने को लेकर भी है। हमें सोचना होगा, दुनिया में हम नहीं है। As far as media is concerned हम 140 करोड़ लोगों के देश हैं। इतना बड़ा देश, इतना सामर्थ्य और संभावनाएं और बहुत ही कम समय में हम भारत को third largest economy होते देखने वाले हैं। अगर भारत की सफलताएं, दुनिया के कोने-कोने तक पहुंचाने का दायित्व भी आप बहुत बखूबी ही निभा सकते हैं। आप जानते हैं कि विदेशों में राष्ट्र की छवि का प्रभाव सीधे उसकी इकोनॉमी और ग्रोथ पर पड़ता है। आज आप देखिए, विदेशों में भारतीय मूल के लोगों का कद बढ़ा है, विश्वसनीयता बढ़ी है, सम्मान बढ़ा है। क्योंकि, विश्व में भारत की साख बढ़ी है। भारत भी वैश्विक प्रगति में कहीं ज्यादा योगदान दे पा रहा है। हमारा मीडिया इस दृष्टिकोण से जितना काम करेगा, देश को उतना ही फायदा होगा और इसलिए मैं तो चाहूंगा कि जितनी भी UN लैंग्वेज हैं, उनमें भी आपके पब्लिकेशंस का विस्तार हो। आपकी माइक्रोसाइट्स, सोशल मीडिया accounts इन भाषाओं में भी हो सकते हैं और आजकल तो AI का जमाना है। ये सब काम आपके लिए अब बहुत आसान हो गए हैं।

साथियों,

मैंने इतने सारे सुझाव आप सबको दे डाले हैं। मुझे मालूम है, आपके अखबार में, पत्र पत्रिकाओं में, बहुत लिमिटेड स्पेस रहती है। लेकिन, आजकल हर अखबार पर और हर एक के पास एक publication के डिजिटल editions भी पब्लिश हो रहे हैं। वहाँ न स्पेस की limitation है और न ही distribution की कोई समस्या है। मुझे भरोसा है, आप सब इन सुझावों पर विचार करके, नए experiments करेंगे, और लोकतंत्र को मजबूत बनाएँगे। और मैं पक्‍का मानता हूं कि आपके लिए एक, भले ही दो पेज की छोटी एडिशन जो दुनिया की UN की कम से कम languages हों, दुनिया का अधिकतम वर्ग उसको देखता है, पढ़ता है… embassies उसको देखती हैं और भारत की बात पहुंचाने की एक बहुत बड़ा source आपके ये जो डिजिटल एडिशंस हैं, उसमें बन सकता है। आप जितना सशक्त होकर काम करेंगे, देश उतना ही आगे बढ़ेगा। इसी विश्वास के साथ, आप सभी का बहुत-बहुत धन्यवाद! और आप सबसे मिलने का मुझे अवसर भी मिल गया। मेरी आपको बहुत शुभकामनाएं हैं! धन्‍यवाद!