হিমাচল প্রদেশে যাঁরা টিকা নেওয়ার যোগ্য তাঁদের সকলকে অন্তত একটি করোনা টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে
বিশ্বের বৃহত্তম এবং দ্রুততম টিকাকরণ কর্মসূচিকে কিভাবে দেশের গ্রামীণ সমাজ সফল করতে পারে হিমাচল প্রদেশ সেটি প্রমাণ করল : প্রধানমন্ত্রী
স্বাস্থ্য এবং কৃষির মতো বিভিন্ন ক্ষেত্রে নতুন ড্রোন নীতি সুবিধাজনক হবে : প্রধানমন্ত্রী
মহিলাদের স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলির জন্য যে বিশেষ অনলাইন প্ল্যাটফর্ম তৈরি হচ্ছে তার মাধ্যমে আমাদের বোনেরা তাঁদের উৎপাদিত পণ্যসামগ্রী দেশে-বিদেশে বিক্রি করতে পারবেন : প্রধানমন্ত্রী
‘অমৃত কাল’-এর সময়ে হিমাচলের মাটিকে রাসায়নিক কুপ্রভাব মুক্ত করার আহ্বান জানিয়ে রাজ্যের কৃষক ও উদ্যানপালকদের জৈব চাষের পরামর্শ

হিমাচল প্রদেশ আজ আমাকে শুধুই একজন প্রধান সেবক রূপে নয়, একজন পরিবারের সদস্য রূপেও গর্বিত হওয়ার সুযোগ দিয়েছে। আমি হিমাচল প্রদেশকে অনেক ছোট ছোট পরিষেবার জন্য সংঘর্ষ করতে দেখেছি। আজ সেই হিমাচলকেই উন্নয়নের পথে এগিয়ে যেতে দেখছি। বিকাশের নতুন গাথা লিখতে দেখছি। এসব কিছু দেব-দেবীদের আশীর্বাদে আর হিমাচল প্রদেশ সরকারের কর্মকুশলতার ফলে আর হিমাচলের প্রত্যেক নাগরিকের সচেতনতার ফলেই সম্ভব হচ্ছে। একটু আগে যাঁদের সঙ্গে আমার কথোপকথনের সুযোগ হয়েছে, যেভাবে তাঁরা নিজেদের কথা বলেছেন, সেজন্য আরেকবার  প্রত্যেককে কৃতজ্ঞতা জানাই, আপনাদের গোটা টিমের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। হিমাচল প্রদেশ একটি টিম রূপে কাজ করে অদ্ভূত সাফল্য পেয়েছে। আমার পক্ষ থেকে আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক শুভকামনা।

হিমাচল প্রদেশের রাজ্যপাল শ্রী রাজেন্দ্র ওরলেকরজি, এ রাজ্যের প্রাণশক্তিতে পরিপূর্ণ জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রী শ্রী জয়রাম ঠাকুরজি, ভারতীয় জনতা পার্টির রাষ্ট্রীয় অধ্যক্ষ আর সংসদে আমার সহযোগী হিমাচলের কৃতি সন্তান শ্রী জগৎ প্রকাশ নাড্ডাজি, কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় আমার সহযোগী শ্রী অনুরাগ ঠাকুরজি, সংসদে আমার সহকর্মী আর হিমাচল ভারতীয় জনতা পার্টির অধ্যক্ষ শ্রী সুরেশ কাশ্যপজি, উপস্থিত অন্যান্য সকল মন্ত্রীগণ, সাংসদ ও বিধায়কগণ, পঞ্চায়েতের জনপ্রতিনিধিগণ আর আমার প্রিয় হিমাচল প্রদেশের ভাই ও বোনেরা!

১০০ বছরের সবচাইতে বড় মহামারীর বিরুদ্ধে আমরা লড়ছি। বিগত ১০০ বছরে ভারতবাসী এরকম দিন কখনও দেখেনি। এই লড়াইয়ে আজ হিমাচল প্রদেশ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সামনে এগিয়ে এসেছে। হিমাচল প্রদেশ ভারতের প্রথম রাজ্য যেখানে সম্পূর্ণ টিকাযোগ্য জনসংখ্যাকে করোনা টিকার ন্যূনতম একটি ডোজ দিতে পেরেছে। শুধু তাই নয়, দ্বিতীয় ডোজের ক্ষেত্রেও হিমাচল প্রদেশের মোট টিকাযোগ্য জনসংখ্যার প্রায় এক-তৃতীয়াংশকে টিকা দেওয়া হয়েছে।

বন্ধুগণ,

হিমাচল প্রদেশের জনগণের এই সাফল্য দেশের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে আর আমাদের সবাইকে উপলব্ধি করিয়েছে যে আত্মনির্ভর হওয়া কতটা জরুরি। ‘সবাইকে টিকা, বিনামূল্যে টিকা’ – ১৩০ কোটি ভারতবাসীর এই আত্মবিশ্বাস এই টিকার ক্ষেত্রে ভারতবাসীর আত্মনির্ভরতারই প্রমাণ। ভারত আজ একদিনে ১ কোটি ২৫ লক্ষ মানুষকে টিকা দিয়ে রেকর্ড তৈরি করেছে। যত টিকা ভারত আজ প্রতিদিন দিচ্ছে, তা অনেক দেশের সমগ্র জনসংখ্যা থেকেও বেশি। ভারতের টিকাকরণ অভিযানের সাফল্য, প্রত্যেক ভারতবাসীর পরিশ্রম ও পরাক্রমের পরিণাম। ভারতের ৭৫তম স্বাধীনতা দিবসে লালকেল্লার প্রাকার থেকে আমি যে ‘সবকা প্রয়াস’-এর আহ্বান রেখেছিলাম, এটা তারই পরিণাম। হিমাচল প্রদেশের পর সিকিম এবং দাদরা ও নগর হাভেলি প্রথম ডোজের ক্ষেত্রে ১০০ শতাংশ পেরিয়ে গেছে আর অনেক রাজ্য এর খুব কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। এখন আমাদের সবাইকে মিলেমিশে চেষ্টা করতে হবে, যাতে যাঁরা প্রথম ডোজ নিয়েছেন তাঁরা যেন অবশ্যই দ্বিতীয় ডোজ নেন।

ভাই ও বোনেরা,

আত্মবিশ্বাসের এই জড়িবুটি হিমাচল প্রদেশে সবচাইতে দ্রুত টিকাকরণ অভিযানে সাফল্যের মূল ভিত্তি। হিমাচল প্রদেশ নিজের ক্ষমতায় বিশ্বাস রেখেছে, নিজের রাজ্যের স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর এবং ভারতের বৈজ্ঞানিকদের ওপর ভরসা রেখেছে। এই সাফল্য সকল স্বাস্থ্যকর্মী, আশা কর্মকর্তা, অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী, শিক্ষক এবং অন্যান্য সংশ্লিষ্ট সকল বন্ধুদের দৃঢ় প্রত্যয়ের পরিণাম। আরোগ্য ক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত সকলের পরিশ্রমেরই ফসল এটা। চিকিৎসক থেকে শুরু করে প্যারা-মেডিকেল স্টাফ ও অন্যান্য সহযোগীদের প্রতিশ্রমের ফসল। এতে আমাদের বৃহৎ সংখ্যক বোনেদের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। কিছুক্ষণ আগেই আমাদের অনেক ফিল্ডে কাজ করতে থাকা বন্ধু বিস্তারিতভাবে বলেছেন, কিভাবে তাঁরা বিভিন্ন সমস্যার মোকাবিলা করেছেন। হিমাচলে সব ধরনের সমস্যা ছিল, যা টিকাকরণের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে। পাহাড়ি প্রদেশ হওয়ার ফলে যাতায়াতের ক্ষেত্রে অনেক সমস্যা ছিল। করোনা টিকা সংরক্ষণ এবং পরিবহণের ক্ষেত্রেও অনেক সমস্যা ছিল। কিন্তু জয়রামজির সরকার যেভাবে ব্যবস্থাকে সুনিয়ন্ত্রিতভাবে কাজে লাগিয়েছে, যেভাবে পরিস্থিতি সামলেছে, তা প্রকৃতপক্ষে প্রশংসনীয়। এভাবে কোনও টিকা নষ্ট না করে হিমাচল প্রদেশ দেশের মধ্যে সব থেকে দ্রুতগতিতে টিকাকরণ অভিযান সম্পন্ন করেছে। এটা খুব বড় কথা যে তারা কোনও টিকা নষ্ট হতে দেয়নি।

বন্ধুগণ,

কঠিন ভৌগোলিক পরিস্থিতিকে জয় করতে জনগণের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা এবং গণ-অংশীদারিত্বই এই টিকাকরণের সাফল্যের বড় কারণ। হিমাচল প্রদেশে প্রতিটি পাহাড়ের পাদদেশে কথ্যভাষা সম্পূর্ণরূপে বদলে যায়। অনেকটা অংশেই এখনও গ্রামীণ সংস্কৃতি বজায় রয়েছে যেখানে আস্থা জীবনের অপরিহার্য অংশ। সেখানে মানুষের জীবনে দেব-দেবীদের আবেগপূর্ণ উপস্থিতি রয়েছে। কিছুক্ষণ আগে কুলু জেলার মালাণা গ্রামের এক বোনের সঙ্গে কথা বলছিলাম। মালাণা গণতন্ত্রকে সঠিক পথে পরিচালনা করার ক্ষেত্রে, প্রাণশক্তি যোগানোর ক্ষেত্রে সর্বদাই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এসেছে। সেখানকার টিম বিশেষ ক্যাম্প লাগিয়েছে। কার-স্প্যান-এর মাধ্যমে টিকার বাক্স পৌঁছেছে আর সেখানকার দেব-সমাজের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের আস্থা অর্জন করে তাঁদের সাহায্যে টিকাকরণ করেছে। গণ-অংশীদারিত্ব এবং জনগণের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগের মাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধির রণনীতিই সিমলার ডোডরা-কোয়ার, কাংরার ছোট ভাঙ্গাল, বড়া ভাঙ্গাল, কিন্নৌর, লাহুল-স্পিতি আর পাঙ্গী-ভরমৌর-এর মতো প্রতিটি দুর্গম ক্ষেত্রে এই রণনীতিই সাফল্য এনেছে।

বন্ধুগণ,

আমি অত্যন্ত আনন্দিত যে লাহুল-স্পিতির মতো দুর্গম জেলা হিমাচল প্রদেশে ১০০ শতাংশ প্রথম ডোজ দেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। এটা এমন অঞ্চল যেখানে অটল সুড়ঙ্গ নির্মাণের আগে বছরে অনেক ক’টা মাস দেশের অন্যান্য অংশের সঙ্গে বিচ্ছিন্ন থাকত। আস্থা, শিক্ষা এবং বিজ্ঞান মিলেমিশে কিভাবে নাগরিক জীবনে পরিবর্তন আনতে পারে এটা হিমাচল প্রদেশ বারবার করে দেখিয়েছে। হিমাচলবাসীরা কোনরকম গুজবে কান দেননি, কোনরকম অপপ্রচারকে গ্রাহ্য করেন নি। দেশের গ্রামীণ সমাজ কিভাবে বিশ্বের সর্ববৃহৎ এবং সবচাইতে দ্রুত টিকাকরণ অভিযানকে বাস্তবায়িত করতে পারে, হিমাচল প্রদেশ তার উজ্জ্বল উদাহরণ।

বন্ধুগণ,

এই দ্রুত টিকাকরণের মাধ্যমে হিমাচল প্রদেশের পর্যটন শিল্প উপকৃত হবে। এই পর্যটনই তো এ রাজ্যে নবীন প্রজন্মের রোজগারের সবচাইতে বড় মাধ্যম। কিন্তু মনে রাখবেন, টিকা নেওয়া হলেও নিয়মিত মাস্ক পরিধান করা এবং দু’গজের দূরত্ব বজায় রাখার মন্ত্র আমাদের ভুললে চলবে না। আমরা তো হিমাচল প্রদেশের মানুষ। আমরা জানি বরফ পড়া শুরু হলেই সবকিছু বন্ধ হয়ে যাবে। তা সত্ত্বেও আমরা যখন কোনকিছু করার জন্য পথে বেরোই তখন অতি সন্তর্পণে প্রতিটি পা বাড়াই। আমরা জানি, বরফ পড়ার পর সন্তর্পণে চলতে হয়। বৃষ্টি হওয়ার পরও আপনারা দেখেছেন, ছাতা বন্ধ করে দিলেও কিছুক্ষণ পথঘাট ভেজা থাকে বলে পা টিপে টিপে এগোতে হয়। একইরকমভাবে এই করোনা মহামারীর পরও আমাদের সামলে চলতে হবে, সন্তর্পণে এগোতে হবে। করোনা সঙ্কটকালে হিমাচল প্রদেশের অনেক যুবক-যুবতী রাজ্যকে ওয়ার্ক ফ্রম হোম, ওয়ার্ক ফ্রম এনিহোয়্যার – এই সংস্কৃতির একটি জনপ্রিয় গন্তব্য করে তুলেছেন। উন্নত সুযোগ-সুবিধা, শহরগুলিতে উন্নত ইন্টারনেট কানেক্টিভিটির মাধ্যমে হিমাচল প্রদেশের নবীন প্রজন্ম অনেক উপকৃত হয়েছে।

ভাই ও বোনেরা,

যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হলে তা জীবন এবং জীবিকার ওপর কতটা ইতিবাচক প্রভাব ফেলে তা এই করোনা সঙ্কটকালেও হিমাচল প্রদেশের মানুষ খুব ভালোভাবে অনুভব করেছেন। উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা বলতে আমি সড়ক যোগাযোগ, রেল যোগাযোগ, বিমানপথে যোগাযোগের পাশাপাশি ইন্টারনেট কানেক্টিভিটির কথাও বুঝি যা আজ দেশের সবচাইতে বড় অগ্রাধিকারে পরিণত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণ সড়ক যোজনার মাধ্যমে আজ এমনকি ৮-১০টি বাড়ি রয়েছে তেমন জনপদের সঙ্গেও সড়কপথে যোগাযোগ স্থাপিত হচ্ছে। হিমাচল প্রদেশের প্রতিটি জাতীয় মহাসড়ককে অনেক প্রশস্ত করা হয়েছে কিছু জায়গায় এখনও প্রশস্তিকরণের কাজ চলছে। এভাবে ক্রমে উন্নত হওয়া যোগাযোগ ব্যবস্থার ফলে এ রাজ্যের পর্যটন শিল্প প্রত্যক্ষভাবে লাভবান হচ্ছে। ফল, সব্জির উৎপাদনকারী কৃষক ও বাগিচা চাষিরা স্বাভাবিকভাবেই উপকৃত হচ্ছেন। গ্রামে গ্রামে ইন্টারনেট পৌঁছে যাওয়ায় হিমাচল প্রদেশের নবীন প্রতিভারা এ রাজ্যের সংস্কৃতির বিবরণ, পর্যটনের নতুন সম্ভাবনাগুলির কথা দেশে-বিদেশে পৌঁছে দিতে পারছেন।

ভাই ও বোনেরা,

আধুনিক প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে ডিজিটাল প্রযুক্তির এই লাভ হিমাচল প্রদেশকে আগামীদিনে আরও লাভবান করবে। বিশেষ করে শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যক্ষেত্রে অনেক বড় পরিবর্তন আসতে চলেছে। এর ফলে, দূরদুরান্তের স্কুলগুলি এবং স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলিতে বড় বড় হাসপাতাল থেকে ও বড় বড় স্কুল থেকে চিকিৎসক ও শিক্ষকরা ভার্চ্যুয়াল মাধ্যমে যুক্ত হতে পারবেন, মূল্যবান পরামর্শ দেবেন।

সম্প্রতি দেশের সরকার আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেটি সম্পর্কে আমি বিশেষভাবে হিমাচল প্রদেশের মানুষকে বলতে চাই। সেটি হল ড্রোন প্রযুক্তি ব্যবহারের নিয়মাবলীতে পরিবর্তন। এখন ড্রোন ব্যবহারের নিয়ম অনেক সহজ করে তোলা হয়েছে। এর ফলে হিমাচল প্রদেশে স্বাস্থ্যক্ষেত্র থেকে শুরু করে কৃষির মতো অনেক ক্ষেত্রে নতুন নতুন সম্ভাবনা গড়ে উঠেছে। ড্রোনের মাধ্যমে এখন ওষুধপত্রের হোম ডেলিভারির কাজও করা যাবে। উদ্যান চাষের ক্ষেত্রে এর প্রয়োগ করা সম্ভব হবে। এছাড়া, আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ করা যাবে, তা হল জমির সার্ভে। আমি মনে করি, ড্রোন প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার আমাদের পার্বত্য অঞ্চলের জনগণের সম্পূর্ণ জীবন বদলে দিতে পারে। অরণ্য, প্রকৃতির সুরক্ষা ও সংরক্ষণের ক্ষেত্রেও হিমাচল প্রদেশে ড্রোন প্রযুক্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে চলেছে। কেন্দ্রীয় সরকার ক্রমাগতএই চেষ্টা চালাচ্ছে যাতে সকল প্রকার সরকারি পরিষেবায় বেশি করে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা যায়।

ভাই ও বোনেরা,

হিমাচল প্রদেশ আজ দ্রুতগতিতে উন্নয়নের পথে এগিয়ে চলেছে। কিন্তু প্রাকৃতিক বিপর্যয়গুলি আজও হিমাচল প্রদেশের জন্য বড় সমস্যা সৃষ্টি করছে। বিগত দিনে অনেক দুর্ভাগ্যপূর্ণ ঘটনায় আমাদের অনেক সঙ্গীকে হারাতে হয়েছে। সেজন্য আমাদের বৈজ্ঞানিক সমাধানের দিকে দ্রুতগতিতে এগিয়ে যেতে হবে। ধ্বস সম্পর্কে আর্লি ওয়ার্নিং সিস্টেম নিয়ে গবেষণাকে উৎসাহিত করতে হবে। শুধু তাই নয়, পার্বত্য অঞ্চলের প্রয়োজন অনুসারে আমাদের নির্মাণ সংক্রান্ত প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও নতুন নতুন উদ্ভাবনের জন্য আমাদের যুব সম্প্রদায়কে উৎসাহিত করতে হবে, প্রেরণা যোগাতে হবে।

বন্ধুগণ,

গ্রামে গ্রামে আরও বেশি মানুষকে যুক্ত করতে পারলে কতটা সার্থক পরিণাম পাওয়া যায় এর বড় উদাহরণ হল জল জীবন মিশন। আজ হিমাচল প্রদেশের সেই অঞ্চলগুলিতেও বাড়িতে বাড়িতে নলের মাধ্যমে জলের সংযোগ করা সম্ভব হয়েছে যেখানে কখনও এটা অসম্ভব বলে মনে করা হত। বনসম্পদের ক্ষেত্রেও এই দৃষ্টিকোণ কাজে লাগতে পারে। এর ফলে, আমাদের গ্রামের বোনেদের যে স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলি রয়েছে সেগুলির অংশীদারিত্ব বাড়াতে হবে। বিশেষভাবে জড়িবুটি, স্যালাড ও নানা শাকসব্জির যোগান বৃদ্ধির ক্ষেত্রে হিমাচলের অরণ্যগুলির অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। এর চাহিদা নিরন্তর ক্রমবর্ধমান। আমাদের পরিশ্রমী বোনেরা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে এগুলির উৎপাদন অনেকগুণ বাড়াতে পারেন। এখন তো ই-কমার্স-এর নতুন মাধ্যমে আমাদের বোনেরা নতুন পদ্ধতিতে নিজেরাও বিক্রি করতে পারেন। গত ১৫ আগস্ট আমি লালকেল্লার প্রাকার থেকে বলেছি যে কেন্দ্রীয় সরকার এখন বোনেদের স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলির জন্য বিশেষ অনলাইন প্ল্যাটফর্ম গড়ে তুলতে চলেছে। এর মাধ্যমে আমাদের বোনেরা এখন দেশ ও বিশ্বের যে কোনও স্থানে তাঁদের উৎপাদিত ফসল বিক্রি করতে পারবেন। কেন্দ্রীয় সরকার ১ লক্ষ কোটি টাকার একটি বিশেষ কৃষি পরিকাঠামো তহবিল গড়ে তুলেছে। বোনেদের স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলি থেকে শুরু করে বিভিন্ন কৃষক উৎপাদক সঙ্ঘ এই তহবিলের সহায়তায় নিজেদের গ্রামের কাছেই হিমঘর কিংবা খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ ইউনিট চালু করতে পারেন। এগুলির মাধ্যমে নিজেদের ফল-সব্জির সংরক্ষণের জন্য তাঁদের অন্যের ওপর নির্ভর করতে হবে না। আবার হিমাচল প্রদেশের পরিশ্রমী কৃষক ও বাগিচা চাষিরা এ থেকে অধিক লাভবান হয়ে উঠবেন বলে আমার বিশ্বাস।

বন্ধুগণ,

স্বাধীনতার অমৃতবর্ষে হিমাচল প্রদেশের কৃষক ও বাগিচা চাষিদের আমি আরেকটি অনুরোধ করতে চাই। আগামী ২৫ বছরে কি আমরা হিমাচল প্রদেশের কৃষিকে পুনর্বার জৈব-কৃষিতে রূপান্তরিত করার চেষ্টা করতে পারি? তাহলে আমাদের ধীরে ধীরে রাসায়নিক সার ও কীটনাশক প্রয়োগ থেকে ফসলকে মুক্ত করতে হবে, আমাদের মাটিকে মুক্ত করতে হবে। আমাদের এমন ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যেতে হবে যেখানে আমাদের মাটি আর আমাদের সন্তান-সন্ততিদের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। হিমাচল প্রদেশের সামর্থ্যের ওপর আমার বিশ্বাস রয়েছে। হিমাচল প্রদেশের যুবশক্তির ওপর আমার ভরসা রয়েছে। যেভাবে দেশের সীমান্তে হিমাচল প্রদেশের যুবকেরা অতন্দ্র প্রহরায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন, সেভাবেই নিজের রাজ্যের মাটির নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও আমাদের প্রতিটি গ্রামের প্রত্যেক কৃষক অগ্রণী ভূমিকা পালন করবেন। হিমাচল প্রদেশ অসাধ্য সাধন করার ক্ষেত্রে তার যে স্বাভাবিক পরিচয় সেটাকেই আরও শক্তিশালী করে তুলবে; এই কামনা নিয়ে আরেকবার আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক শুভকামনা জানাই। হিমাচল প্রদেশ সম্পূর্ণ টিকাকরণের ক্ষেত্রে দেশে সবার আগে সফল হোক এই শুভকামনা জানাই।

আজ আমি সমস্ত দেশবাসীকে করোনা নিয়ে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানাচ্ছি। এখন পর্যন্ত দেশে ৭০ কোটি টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। এর পেছনে সারা দেশের চিকিৎসক, সেবিকা, অঙ্গনওয়াড়ি, আশা বোনেদের ভূমিকা, স্থানীয় প্রশাসন, টিকা উৎপাদনকারী কোম্পানি এবং ভারতের বৈজ্ঞানিকদের অনেক তপস্যা রয়েছে। দেশে দ্রুতগতিতে টিকাকরণ অভিযান চলছে কিন্তু আমাদের কোনরকম উদাসীনতা আর গাফিলতি করলে চলবে না। আমি করোনা সংক্রমণের প্রথম দিন থেকেই একটি মন্ত্র বলছি – ‘ওষুধও, কড়াকড়িও’। এই মন্ত্র আমাদের ভুললে চলবে না। আরেকবার হিমাচলের জনগণকে অনেক অনেক শুভকামনা জানাই। অনেক অনেক ধন্যবাদ!

Explore More
ভারতের ৭৭তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে লালকেল্লার প্রাকার থেকে দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ

জনপ্রিয় ভাষণ

ভারতের ৭৭তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে লালকেল্লার প্রাকার থেকে দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ
India’s overall exports hit record $776.7 bn in FY24

Media Coverage

India’s overall exports hit record $776.7 bn in FY24
NM on the go

Nm on the go

Always be the first to hear from the PM. Get the App Now!
...
PM Modi addresses a public meeting in Gaya, Bihar
April 16, 2024
RJD is the biggest face of jungle raj in Bihar... RJD has given only two things to Bihar - Jungle Raj and Corruption: PM Modi
Two days ago, BJP released its 'Sankalp Patra'. This is the first time, some party's 'Sankalp Patra' is being called a 'guarantee card': PM Modi
PM Modi on BJP’s Sankalp Patra: Three crore houses for the poor, free ration for five years, and free treatment up to Rs 5 lakhs for those above 70 years

Amidst the ongoing election campaigning, Prime Minister Narendra Modi addressed a public meeting in Gaya, Bihar. Seeing the massive crowd, PM Modi said, “This immense public support, your enthusiasm, clearly indicates - June 4, 400 Paar! Gaya and Aurangabad have announced today – Phir Ek Baar, Modi Sarkar!”

"Just two days ago, the BJP released its Sankalp Patra. This is the first time that the Sankalp Patra of any party is being called a guarantee card. Because over the past 10 years, everyone has seen Modi's guarantee, which means a guarantee of fulfilment,” added PM Modi.

Talking about how the Congress and RJP exploited the poor, PM Modi asserted, “For decades, the Congress, which ruled the country, squandered opportunities, wasting the nation's time. We have lifted 25 crore people out of poverty. For decades, Congress and its allies showed dreams of bread and shelter to the poor. The NDA government has provided pucca houses to 4 crore poor. Jitan Ram Manjhi is a witness to how the Congress and the RJD exploited the names of Dalits, oppressed, and backward classes for their own political selfishness. The NDA has given rights and dignified lives to Dalits, oppressed, and backward classes.”

Focussing on development projects, PM Modi stated, "In our agenda, there is both development and heritage. You also know how long the North Koel project was pending. It's the NDA government that has put it back on track. The completion of this project will be a significant boon for the farmers of Gaya and Aurangabad, providing irrigation facilities. Under our government, Gaya Ji has also been included in the list of 12 ancient historical heritage sites under the PRASAD scheme." He further said, “This pace of development is just a trailer. I have much more to do for the country.”

Slamming the Opposition for doing politics over Ram Temple, PM Modi iterated, "Tomorrow is Ram Navami, a festival where the rays of the sun will specially bless the forehead of Ram Lalla in Ayodhya. However, the people of the INDI Alliance are also troubled by the Ram temple. Those who once questioned the existence of Lord Ram are now speaking all kinds of language against the Ram Mandir! To appease a community, these people have even boycotted the consecration ceremony. A leader of this alliance, Congress's Shehzada, has openly declared that he will destroy the Shakti of Hinduism. Their other companions call our ancient tradition Dengue Malaria. Can you tell me, are these people worthy of winning even a single seat?”

Accusing the RJD of casting the state in a negative light, PM Modi remarked, “RJD has ruled Bihar for several years but they don't have the guts to discuss the work done by their government. RJD has only given two things to Bihar - Jungle Raj and Corruption. It was during their era when kidnapping and ransom became an industry in Bihar. Our sisters and daughters couldn't step out of their homes. Areas like our Gaya were engulfed in the flames of Naxal violence. RJD forced many families to leave Bihar out of compulsion.”

He went on to say, “I say, eradicate corruption, and they say, save the corrupt. They think that the people of Bihar, the youth of Bihar, will fall for their words. In the era of smartphones, the smart youth of Bihar will never align with the goons of Jungle Raj. If RJD were in power, even your mobile phone battery wouldn't get charged. Those who want to charge mobile phones with their lanterns do not want the country to progress.”

Lashing out at the opposition, PM Modi said, “Those who insult Sanatan should listen carefully: even in the Constituent Assembly that drafted India's Constitution, 80-90% of the members were Sanatanis, and these Sanatanis collaborated with Dr. B.R. Ambedkar to create such an outstanding Constitution. For the opposition, the constitution will be a political tool, but for us, the constitution is the cornerstone of our faith.”