শেয়ার
 
Comments
PM Modi dedicates Bansagar Canal Project to the nation, move to provide big boost to irrigation in the region
PM Modi lays foundation stone of the Mirzapur Medical College, inaugurates 100 Jan Aushadhi Kendras
Previous governments left projects incomplete and this led to delay in development: PM Modi
Those shedding crocodile tears for farmers should be asked why they didn’t complete irrigation projects during their tenure: PM Modi

মির্জাপুরে এসে আজ আমি অত্যন্ত গর্ব অনুভব করছি। জগৎজননী মা বিন্ধবাসিনীর কোলে আপনাদের সবাইকে দেখে খুব ভালো লাগছে। আপনারা সকলেই অনেকক্ষণ ধরে এখানে উপস্থিত হয়েছেন। আপনাদের প্রণাম জানাই। এই বিপুল জনসংখ্যা দেখে আমার আস্থা অনেক বেড়ে গেছে যে, মা বিন্ধ্যবাসিনী এবং আপনাদের আশীর্বাদ আমার ওপর বর্ষিত হচ্ছে।

উত্তর প্রদেশের রাজ্যপাল শ্রদ্ধেয় রাম নায়েক মহোদয়, রাজ্যের যশস্বী পরিশ্রমী মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ, সদা হাস্যময় উপ-মুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্য, কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সদস্য আমার বোন অনুপ্রিয়া, রাজ্যের মন্ত্রী সিদ্ধার্থনাথ, গর্বপাল সিং, আশুতোষ ট্যান্ডন, রাজেশ আগরওয়াল, সংসদ সদস্য ও বিজেপি-র প্রদেশ অধ্যক্ষ মহেন্দ্রনাথ পাণ্ডে, সাংসদ বীরেন্দ্র সিং, সাংসদ ভাই ভাই ছোটেলাল এবং বিপুল সংখ্যায় আগত আমার ভাই ও বোনেরা।

আমি সেই তখন থেকে মঞ্চ থেকে বসে দেখছি দু’দিক থেকেই দলে দলে মানুষ আসছেন, এখনও আসছেন। বিন্ধ্য পর্বত ও ভাগীরথীর মধ্যবর্তী এই গোটা এলাকা দিব্য ও অলৌকিক, শতাব্দীকাল ধরে অপার সম্ভাবনার কেন্দ্র। সেই সম্ভাবনার অন্বেষণ এবং এই অঞ্চলের উন্নয়নযজ্ঞে সামিল হয়ে আজ আপনাদের আশীর্বাদ গ্রহণের সৌভাগ্য হয়েছে। গত বছর মার্চ মাসে আমি যখন সৌর প্রকল্প উদ্বোধন করতে এসেছিলাম, তখন আমার সঙ্গে ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতিও ছিলেন। তখন আমাদের দু’জনকেই মা বিন্ধ্যবাসিনীর ছবি ও ওড়না দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়েছিল। সেই অভ্যর্থনায় ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি ম্যাক্র এতই অভিভূত হয়েছিলেন যে তিনি আমার কাছে মায়ের মহিমা সম্পর্কে জানতে চেয়েছিলেন। আর আমার কাছে মায়ের মহিমা জেনে তিনি অবাক হয়ে যান। এভাবেই এই আস্থার পরম্পরা বিশ্বময় ছড়িয়ে দেওয়ার দায়িত্ব আমাদের সকলকে নিতে হবে।

এই রাজ্যে আদিত্যনাথ যোগীর নেতৃত্বে এনডিএ সরকার গঠনের পর পূর্বাঞ্চল তথা গোটা উত্তর প্রদেশের উন্নয়ন কতটা গতি পেয়েছে, তা আজ সবাই দেখতে পাচ্ছে। এই অঞ্চলে গরিব, বঞ্চিত, শোষিত, পীড়িত মানুষের উন্নয়নের যে স্বপ্ন সোনেলাল প্যাটেলের মতো কর্মঠ মানুষেরা দেখেছিলেন, তা বাস্তবায়িত করার প্রচেষ্টা কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার নিরন্তর কাজ করে চলেছে। বিগত দু’দিন ধরে উত্তর প্রদেশের পূর্বাঞ্চলের জনগণকে এরকম অসংখ্য উন্নয়ন প্রকল্প উৎসর্গ করার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। দেশের সর্ববৃহৎ পূর্বাঞ্চল এক্সপ্রেসওয়ে, বারানসীতে নির্মিয়মান পেরিশেবল কার্গো সেন্টার এবং রেলের অসংখ্য প্রকল্প পূর্বাঞ্চলের উন্নয়নকে অভূতপূর্ব গতি প্রদানের কাজ করবে।

একটু আগেই ঐতিহাসিক বাণসাগর বাঁধ সহ প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প উদ্বোধন কিংবা শিলান্যাস হয়েছে। এই প্রকল্পগুলি সেচ, স্বাস্থ্য এবং সুষ্ঠু যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নত করার মাধ্যমে মির্জাপুর, সোনভদ্র, ভদৌরি, চন্দৌলি এবং এলাহাবাদ অঞ্চলে কৃষকদের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন আনতে চলেছে। কৃষকদের নাম করে পূর্ববর্তী সরকারগুলি সাধারণ মানুষের ভালো না করে শুধু নিজেদের আর পরিবারের সদস্যদের ভালো করেছে। দারিদ্র্য দূরীকরণের নামে ভোট চেয়ে, দলিত বা পিছিয়ে পড়া মানুষের নামে ভোট চেয়ে তাঁদেরই ভোটে নির্বাচিত হয়ে তাঁরা নিজেদের পারিবারিক সিন্দুক ভরা ছাড়া আর কোনও কাজ করেননি। অথচ এখন দেখুন, এতদিন যাঁরা পরস্পরের মুখদর্শন করতেন না, তাঁরা সবাই একত্রিত হয়েছেন। সকাল-সন্ধ্যা শুধুই আমার নাম জপ করেন – মোদী মোদী মোদী। এই সকল পরিবারবাদী দলগুলি আপনাদের উন্নয়নের প্রতিবন্ধক। তাঁরা আপনাদের ক্ষমতায়ন চান না। কারণ, আপনাদের ক্ষমতায়ন সুনিশ্চিত হলে তাঁদের দোকান বন্ধ হয়ে যাবে।

বন্ধুগণ, প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগে নির্মিত এই বাণসাগর প্রকল্প শুধু মির্জাপুর নয়, এলাহবাদ সহ গোটা অঞ্চলে প্রায় দেড় লক্ষ হেক্টর জমিতে সেচের জল পৌঁছে দেবে। এই প্রকল্প আগে সম্পূর্ণ হলে দু’দশক আগে থেকেই আপনারা উপকৃত হতে পারতেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে ১৯৭৮ সালে শিলান্যাস হওয়া এই প্রকল্পের কাজ বাস্তবে শুরু হতেই ২০ বছর লেগে যায়। তারপরও একের পর এক সরকার ক্ষমতায় আসে কিন্তু জনগণ প্রতিশ্রুতি ছাড়া আর কিছু পান না।

২০১৪ সালে আপনারা আমাদের সেবার সুযোগ দিলে আমরা ঝুলে থাকার সমস্ত জনকল্যাণকারী প্রকল্প খুঁজে বের করি। লালফিতের ফাঁসে হারিয়ে যাওয়া এই বাণসাগর প্রকল্পকে তখন আমরা প্রধানমন্ত্রী কৃষি সিঁচাই যোজনার সঙ্গে যুক্ত করি এবং একে সম্পূর্ণ করার জন্য সর্বশক্তি প্রয়োগ করি। কিন্তু শুরুর দিকে রাজ্যে ভিন্ন মতাবলম্বী সরকার থাকায় কাজে তেমন গতি আসছিল না। কিন্তু বছর খানেক আগে আপনারা আদিত্যনাথ যোগীর নেতৃত্বাধীন সরকারকে ক্ষমতায় আনায় এই প্রকল্পের কাজেও গতি আসে। তার পরিণামস্বরূপ, আজ বাণসাগরের এই অমৃত আপনাদের সকলের জীবনে সৌভাগ্য এনে দেওয়ার জন্য প্রস্তুত। আপনারা শুনলে খুশি হবেন যে, বাণসাগর ছাড়াও এরকম যুগ সুগ ধরে অসম্পূর্ণ পড়ে থাকা ‘সরজুনগর রাষ্ট্রীয় পরিযোজনা’ এবং ‘মধ্য গঙ্গাসাগর পরিযোজনা’র কাজও দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে।

বন্ধুগণ, এই বাণসাগর প্রকল্প ঠিক সময়ে চালু হলে মাত্র ৩০০ কোটি টাকার বাজেটেই সম্পূর্ণ হয়ে যেত। কিন্তু ৪০ বছর পর এটি সম্পূর্ণ করতে আমাদের খরচ হয়েছে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা। সাধারণ মানুষের রক্ত জল করা অর্থ এভাবে অপচয় করার দায় পূর্ববর্তী সরকারগুলিকে নিতে হবে। সারা ভারতে এরকম অসংখ্য প্রকল্প তাঁরা অসম্পূর্ণ ছেড়ে গেছেন।

ভাই ও বোনেরা, আজ এখানে যে কৃষকেরা উপস্থিত হয়েছেন, তাঁদের কাছে আমার কিছু আবদার রয়েছে। এই মা বিন্ধবাসিনীর মাটিতে দাঁড়িয়ে আপনাদের একটি প্রতিশ্রুতি পালন করতে হবে। সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা খরচ করে আপনাদের কাছে যে জল পৌঁছে দেওয়া হয়েছে, আমাকে কথা দিন সেই জল আপনারা নষ্ট হতে দেবেন না। স্প্রিঙ্কলার সেচের মাধ্যমে এর প্রত্যেক জলবিন্দুকে আপনারা কাজে লাগাবেন। এতে আপনাদের টাকা বাঁচবে, জল সাশ্রয় হবে এবং কম পরিশ্রমে অধিক ফসল উদ্বোধন করতে পারবেন। যদি তা করতে পারেন, এই সেচখালের মাধ্যমে যে ১ লক্ষ ২৫ হাজার হেক্টর জমিতে জল পৌঁছবে, তা থেকে আরও ৭৫ হাজার হেক্টর জমি সেচের জল পেতে পারে। তারমানে, আপনারা আমাকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি পালন করলে এই প্রকল্পের মাধ্যমে দ্বিগুণ সংখ্যক কৃষক উপকৃত হবেন। আপনাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হবে। সরকার ক্ষুদ্র সেচ প্রকল্পে ভর্তুকি দেয়। আপনারা সেইও ভর্তুকির সুবিধাও গ্রহণ করুন।

আমার প্রিয় কৃষক ভাই ও বোনেরা, যাঁরা আপনাদের জন্য কুমীরের কান্না কাঁদতেন, তাঁরা ন্যূনতম সহায়ক মূল্য নির্ধারিত করার ক্ষেত্রে এগিয়ে আসেননি। খবরের কাগজে বিজ্ঞাপন ও ফটো ঠিকই ছাপাতেন। কিন্তু কৃষকরা কিছু পাননি। অনেক বছর আগেই ফসল উৎপাদনে মোট খরচের দেড় গুণ সহায়ক মূল্য প্রদানের সুপারিশ করা হয়েছিল। কিন্তু কৃষকদের নামে রাজনীতি করা নেতাদের এতো সময় কোথায়! আমরা দায়িত্ব নিয়ে এই কাজটি করেছি। আপনাদের প্রধান সেবক হিসাবে দেশের গ্রাম, গরিব, কৃষকদের সামনে মাথা নত করে বলছি, আমরাও ন্যূনতম সহায়ক মূল্য দেড় গুণ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম এবং আমরা তা করে দেখিয়েছি। সম্প্রতি সরকার কৃষকদের প্রতিশ্রুতি পূরণের মাধ্যমে খরিফ চাষে ১৪টি ফসলে ন্যূনতম সমর্থন মূল্য অনেকটাই বৃদ্ধি করেছে। ধান, ভুট্টা, জোয়ার, বাজরা, অড়হর, মুগ, সূর্যমুখী, সয়াবীন, তিল ইত্যাদির সমর্থন মূল্য ২০০ টাকা থেকে ১৮০০ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে, যাতে তাঁরা বিনিয়োগ মূল্যের দ্বিগুণ সমর্থন মূল্য পান।

ভাই ও বোনেরা, এই সিদ্ধান্তের ফলে উত্তর পূর্বাঞ্চলের কৃষকেরাও অনেক লাভবান হবেন। ১ ক্যুইন্টাল ধানে এবার ২০০ টাকা বেশি পাবেন। ১ ক্যুইন্টাল ধান উৎপাদনে আপনাদের খরচ হয় ১,১০০-১,২০০ টাকা, ধানের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য স্থির হয়েছে ১,৭৫০ টাকা। এর মানে সরাসরি ৫০ শতাংশ লাভ হবে। আমাকে বলা হয়েছে যে, গত বছরের তুলনায় এ বছর উত্তর প্রদেশে চার গুণ ধান ক্রয় সুনিশ্চিত করা হয়েছে। সেজন্য আমি আদিত্যনাথ যোগী ও তাঁর পুরো টিমকে ধন্যবাদ জানাই।

অড়হরের সহায়ক মূল্য ২০০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। এক্ষেত্রে বিনিয়োগের প্রায় ৬৫ শতাংশ লাভ সুনিশ্চিত। বন্ধুগণ, আমাদের সরকার দেশের কৃষকদের ছোট ছোট সমস্যা বুঝে নিয়ে সেগুলি দূর করার জন্য দিন-রাত কাজ করছে। বীজ থেকে বাজার পর্যন্ত কৃষককে সাহায্য করে তাঁদের আয় বৃদ্ধির চেষ্টা করছে। আগে আপনাদের ইউরিয়া সংগ্রহ করার জন্য পুলিশের লাঠি খেতে হ’ত। কালো বাজার থেকে ইউরিয়া কিনতে হ’ত। গত চার বছরে আপনাদের আশীর্বাদ ও সহযোগিতায় আমরা এই সঙ্কট থেকে বেরিয়ে এসেছি।

ভাই ও বোনেরা, আমরা ঠিক করেছি যে আগামী ২০২২ সালের মধ্যে কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।সরকারের পুরনো নীতি বদলে, সমস্ত সমস্যা নিরসন করে এগিয়ে যেতে হবে। যেমন – আমরা বাঁশের বৈজ্ঞানিক প্রজাতি অনুসারে ঘাস হিসাবে স্বীকৃতি দিয়ে আইন প্রণয়ন করেছি। ফলে আগে অবৈজ্ঞানিকভাবে বাঁশকে গাছ মনে করায় তার চাষ ও বিক্রির ক্ষেত্রে কৃষকদের যে আইনি সমস্যার সম্মুখীন হতে হ’ত, তা দূর হয়েছে। এখনও দেশে হাজার কোটি টাকার বাঁশ বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। এখন আমার দেশের চাষিরাই বেশি করে বাঁশের চাষ করে এই বিরাট পরিমাণ টাকা সাশ্রয় করতে পারবেন। ক্ষেতের আলে কাটা তার না লাগিয়ে বাঁশ চাষ করলে ক্ষেতের সীমানা যেমন সুরক্ষিত থাকবে, তেমনই কৃষকের আমদানিও বৃদ্ধি পাবে। আমরা যখন কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করার কথা বলেছি, অনেকেই তখন তা নিয়ে ঠাট্টা- বিদ্রুপ করেছেন, নানারকম নিরাশাব্যঞ্জক কথা বলেছেন, একটা হতাশার পরিবেশ গড়ে তোলার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু আমরা লক্ষ্যস্থির রেখে এগিয়ে চলেছি। দেশের কৃষকদের ওপর আমার ভরসা ছিল। আমাদের দেশের কৃষকদের সামনে কোনও লক্ষ্যস্থির করে দিয়ে, প্রয়োজনীয় পরিবেশ গড়ে তুলতে পারলে, পরিবর্তন আনতে পারলে তাঁরা ঝুঁকি নিতে, পরিশ্রম করতে এবং পরিণাম আনতে প্রস্তুত; আগেও তাঁরা এটা করে দেখিয়েছেন। আমরা কিন্তু আপনাদের সঙ্গে নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এক্ষেত্রে আমরা মূলতঃ চারটে বিষয়ে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েছি। প্রথমতঃ–কৃষকের বিনিয়োগ ও কাঁচামালের প্রয়োজন হ্রাস করা। দ্বিতীয়তঃ- উৎপাদিত ফসলের সঠিক মূল্য পাওয়া। তৃতীয়তঃ – উৎপাদিত ফসলের অপচয় রোধ, আর চতুর্থতঃ – কৃষকের বিকল্প রোজগারের ব্যবস্থা গড়ে তোলা! আপনাদের জীবন সুগম করে তুলতে যোগাযোগ ব্যবস্থাকে আরও সুলভ করতে এখানে বেশ কিছু সেতু উদ্বোধন ও শিলান্যাসের সৌভাগ্যও আমার হয়েছে। চুনার সেতু উদ্বোধনের পর চুনার ও বারানসীর মধ্যে দূরত্ব অনেক কমে গেছে। আমাকে এটাও বলা হয়েছে যে, বর্ষার সময়ে এখানকার হাজার হাজার মানুষ দেশের বাকি অঞ্চল থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যান। এই নতুন সেতু তাঁদের এই সমস্যা দূর করবে।

ভাই ও বোনেরা, সস্তা ও উন্নত স্বাস্থ্য পরিষেবা দেশের দরিদ্রতম মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার সংকল্প নিয়ে আমরা কাজ করে চলেছি। এখানে নির্মীয়মান নতুন মেডিকেল কলেজ, মির্জাপুর ছাড়াও সোনভদ্র, ভদোহি, চন্দৌলি এবং এলাহবাদের জনগণের উপকারে লাগবে। এছাড়া, এখানকার জেলা হাসপাতাল ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট হবে। ফলে, কঠিন রোগের ক্ষেত্রেও চিকিৎসার জন্য আমাদের দূরে যেতে হবে না। আজ এই অনুষ্ঠানে গোটা উত্তর প্রদেশে ১০০টিরও বেশি জনঔষধি কেন্দ্র উদ্বোধন হ’ল। এই জনঔষধি কেন্দ্রগুলি গরিব, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের জীবনে আশার আলো দেখাবে। এই কেন্দ্রগুলিতে ৭০০রও বেশি ওষুধ এবং ১৫০টিরও বেশি শল্য চিকিৎসা পরবর্তী বিভিন্ন উপকরণ সুলভে পাওয়া যাবে। ইতিমধ্যেই সারা দেশে এরকম প্রায় সাড়ে তিন হাজার জনঔষধি কেন্দ্র খোলা হয়েছে। ৮০০-রও বেশি ওষুধকে মূল্য নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থার আওতায় আনা হয়েছে। হৃদ রোগের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় স্টেন্টের মূল্য এবং হাঁটু প্রতিস্থাপনকে সুলভ করা হয়েছে। ফলে, যে গরিব মানুষের মাসে হাজার টাকার ওষুধ কিনতে হয়, তিনি এখন সেই ওষুধ ২৫০-৩০০ টাকায় পাবেন। যাঁদের বাড়িতে বয়স্ক মানুষরা রয়েছেন, তাঁদের মাসে ১০০০-৫০০০ টাকার ওষুধ কিনতে হয়। সেই পরিবারগুলির কত টাকা সাশ্রয় হবে একবার ভাবুন। এই কাজ আগের সরকারও করতে পারত। কিন্তু তাদের জন্য দল, পরিবার এবং ক্ষমতাই অগ্রাধিকার পেয়েছে। সাধারণ মানুষের ভালো করার কথা ভাবার সময় তাঁদের ছিল না।

বন্ধুগণ, আজকাল অনেকের জীবনে ডায়লিসিসের প্রয়োজনীয়তা বেড়ে গেছে। এই সমস্যা সমাধানে আমরা প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় ডায়ালিসিস কর্মসূচি চালু করেছি। এই কর্মসূচির মাধ্যমে আমরা দেশের প্রত্যেক জেলায় ডায়ালিসিস কেন্দ্র গড়ে তুলছি। ইতিমধ্যেই দেশে প্রায় ২৫ লক্ষ ডায়ালিসিস সেশন গরিব, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তদের বিনামূল্যে প্রদান করা হয়েছে। প্রত্যেক সেশনে গরিবদের ১,৫০০-২,৫০০ টাকা সাশ্রয় হচ্ছে। এই কিডনী সংক্রান্ত সমস্যা দূরীকরণে স্বচ্ছ ভারত মিশন অভিযান কার্যকরী প্রমাণিত হয়েছে। গত বছরের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী যে গ্রামগুলিতে শৌচালয়ের ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়েছে, সেখানকার বিশেষ করে মহিলা ও শিশুদের কিডনী সংক্রান্ত রোগ কমেছে। শুধু তাই নয়, অন্যান্য রোগের ক্ষেত্রেও প্রতিটি পরিবারে চিকিৎসা খরচ বাবদ গড়ে বার্ষিক ৫০ হাজার টাকা সাশ্রয় হয়েছে।

বন্ধুগণ, দারিদ্র্য ও অসুস্থতার কুচক্রকে বিনাশ করার জন্য সরকার অবিলম্বে একটি বড় প্রকল্প চালু করবে। এই আয়ুষ্মান ভারত’কে অনেকে মজা করে মোদী কেয়ার বলছেন। আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের মাধ্যমে সরকার দেশের সকল গরিব পরিবারের যে কোনও সদস্য অসুস্থ হলে বছরে ৫ লক্ষ টাকা খরচের চিকিৎসা বিনামূল্যে প্রদান করার ব্যবস্থা গড়ে তুলছে। এর দ্বারা দেশের প্রায় ৫০ কোটি গরিব মানুষ উপকৃত হবেন।

ভাই ও বোনেরা, গরিব, শোষিত, পীড়িত, বঞ্চিত মানুষের প্রতিটি সমস্যা সমাধানে তাঁদের পাশে দাঁড়ানো এবং তাঁদের জীবনকে সহজ করে তোলার ব্রত নিয়ে আমরা কাজ করে চলেছি। সেজন্য জন ধন যোজনার মাধ্যমে উত্তর প্রদেশের প্রায় ৫ কোটি গরিব মানুষের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। মাসে মাত্র ১ টাকা এবং দিনে ৯০ পয়সা কিস্তিতে এই রাজ্যের দেড় কোটিরও বেশি গরিব মানুষের জীবন সুরক্ষা সুনিশ্চিত করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রায় তিনশো কোটি টাকার বিমারাশি দুর্ভাগ্যতাড়িত পরিবারগুলির হাতে পৌঁছেছে। আমি শুধু উত্তর প্রদেশের ক্তহাই বলছি। আমরা যদি একশো কোটি টাকাও ঘোষণা করতাম তাহলে খবরের কাগজে হেডলাইন হতো। কিন্তু আমরা ইতিমধ্যেইতিনশো কোটি টাকার বিমারাশি দুর্ভাগ্যতাড়িত পরিবারগুলির হাতে পৌঁছে দিতে পেরেছি। ৮০ লক্ষেরও বেশি মহিলাকে বিনামূল্যে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার প্রদানের মাধ্যমে জ্বালানি কাঠের ধোঁয়া থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। এখন গরিবরা রুপে কার্ডের মাধ্যমে বড়লোকদের মতোই এটিএম কাউন্টার ব্যবহার করতে পারছেন।

বন্ধুগণ, আপনাদের মধ্যে যাঁরা এখনও এই প্রকল্পগুলির দ্বারা উপকৃত হননি, তাঁদের অনুরোধ জানাই যে, আপনারা এই প্রকল্পগুলির সঙ্গে যুক্ত হন। কেউ চান না যে, মা বিন্ধবাসিনীর আশীর্বাদের আপনাদের পরিবারে কোনও সঙ্কট আসুক। কিন্তু আগামীকালের গর্ভে কী রয়েছে – তা কে জানেন! কোনও সঙ্কট যদি সত্যি সত্যি চলে আসে, তাহলে এই প্রকল্পগুলি আপনাদের সঙ্কট মোচনে পাশে দাঁড়াবে। গরিব মানুষের কল্যাণে যে প্রকল্পগুলি সরকার চালু করেছে, যে সিদ্ধান্তগুলি নিয়েছে, সেগুলি গরিবদের ক্ষমতায়নের পাশাপাশি তাঁদের জীবনযাত্রার মানেও পরিবর্তন আনছে। সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক রিপোর্টে আমরা দেখেছি যে, গত দু’বছরে ভারতে ৫ কোটিরও বেশি মানুষ অত্যন্ত দারিদ্র অবস্থা থেকে মুক্তি পেয়েছেন। এসব খবর সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত হয় না। টিভিতেও দেখায় না আর খবরের কাগজে ছাপা হলে, তা ভেতরের পাতায় ছোট করে লেখা হয়। কোনও নেতিবাচক খবর হলে অবশ্য সংবাদ মাধ্যম তা নিয়ে এতদিনে সোরগোল ফেলে দিত। আমাদের প্রত্যেক প্রকল্পে পরিণাম এখন স্পষ্ট প্রতীয়মান। যেমন – উজ্জ্বলা যোজনার মাধ্যমে মহিলাদের শুধুই কাঠ ও কয়লার ধোঁয়া থেকে মুক্তি দেয়নি, ঐ পরিবারগুলির রোজগার বৃদ্ধিতেও সাহায্য করেছে। উত্তর প্রদেশেরই ৮০ লক্ষেরও বেশি মহিলাকে বিনামূল্যে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার প্রদানের মাধ্যমে জ্বালানি কাঠের ধোঁয়া থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। জন ধন যোজনার মাধ্যমে উত্তর প্রদেশের প্রায় ৫ কোটি গরিব মানুষের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। মুদ্রা যোজনার মাধ্যমে কোনও রকম গ্যারান্টি ছাড়া উত্তর প্রদেশের ১ কোটিরও বেশি মানুষ ব্যাঙ্ক ঋণ পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার মাধ্যমে ইতিমধ্যেই ১৮ লক্ষ মানুষ গৃহ পেয়েছেন, যা এই সকল পরিবারকে দারিদ্র্য সীমার ওপরে আসতে সাহায্য করেছে।

বন্ধুগণ, গরিবের জন্য ওষুধ, কৃষকের জন্য সেচের জল, শিশুদের জন্য লেখাপড়া এবং যুবক-যুবতীদের জন্য কর্মসংস্থান সুনিশ্চিত করার মাধ্যমে আমরা নতুন ভারতের সংকল্প সিদ্ধ করতে নতুনভাবে কাজ করে চলেছি। আজ আজ আপনাদের মাঝে এসে অনেকগুলি প্রকল্পের উদ্বোধন ও শিলান্যাসের সৌভাগ্য হ’ল। উত্তর প্রদেশের উন্নয়নে কেন্দ্রীয় সরকার ও আদিত্যনাথ যোগীর নেতৃত্বাধীন উত্তর প্রদেশ সরকার যেভাবে এক একটি প্রকল্প সাফল্যের সঙ্গে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, তার জন্য আমি সংশ্লিষ্ট সকল কর্মবীরকে অন্তর থেকে শুভেচ্ছা জানাই। আমি আরেকবার মা বিন্ধ্যবাসিনীর আশীর্বাদে আপনাদের অনুরোধ জানাই যে, এই সেচখালের মাধ্যমে পাওয়া প্রত্যেক বিন্দু জল ব্যবহারের যে প্রতিশ্রুতি আপনারা আমাকে দিয়েছেন, তা সততার সঙ্গে পালন করবেন। এই গরমে আপনারা বিপুল সংখ্যায় এখানে এসে আপনারা আমাদের সকলকে যেভাবে আশীর্বাদ জানিয়েছেন, সেজন্য আপনাদের অনেক অনেক ধন্যবাদ জানাই। আপনারা সকলে আমার সঙ্গে মুষ্ঠিবদ্ধ করে পূর্ণ শক্তি দিয়ে বলুন ভারতমাতা কি জয়। ভারতমাতা কি জয়। ভারতমাতা কি জয়।

অনেক অনেক ধন্যবাদ।

২০ বছরের সেবা ও সমর্পণের ২০টি ছবি
Explore More
আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

জনপ্রিয় ভাষণ

আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
What PM Gati Shakti plan means for the nation

Media Coverage

What PM Gati Shakti plan means for the nation
...

Nm on the go

Always be the first to hear from the PM. Get the App Now!
...
সোশ্যাল মিডিয়া কর্নার 25 অক্টোবর 2021
October 25, 2021
শেয়ার
 
Comments

Citizens lauded PM Modi on the launch of new health infrastructure and medical colleges.

Citizens reflect upon stories of transformation under the Modi Govt