শেয়ার
 
Comments

প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী আজ উত্তর প্রদেশের বারানসী সফর করেন।

বারানসী’তে তিনি আন্তর্জাতিক ধান্য গবেষণা প্রতিষ্ঠান জাতির উদ্দেশে উৎসর্গ করেন। প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পরীক্ষাগারও তিনি ঘুরে দেখেন।

দীনদয়াল হস্তকলা সঙ্কুলে প্রধানমন্ত্রী “এক জেলা, এক পণ্য’ শীর্ষক প্রদর্শনী ঘুরে দেখেন।

এরপর, তিনি পেনশন প্রদান ও পরিচালনার লক্ষ্যে এক সুসংবদ্ধ প্রকল্পের সূচনা করেন। বারানসীতে একাধিক প্রকল্পের শিলান্যাস ও জাতির উদ্দেশে উৎসর্গ উপলক্ষে ফলকের আবরণ উন্মোচন করেন।

আজ যেসব প্রকল্পের আবরণ উন্মোচন করা হয়েছে, সে প্রসঙ্গে শ্রী মোদী বলেন, এগুলির সবকটিরই অভিন্ন উদ্দেশ্য রয়েছে, তা হল – জীবনযাপনের মানোন্নয়ন ও সহজে ব্যবসা-বাণিজ্যের অনুকূল পরিবেশ গড়ে তোলা। তিনি উত্তর প্রদেশ সরকারের ‘এক জেলা, পণ্য’ প্রকল্পটিকে ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ কর্মসূচির সম্প্রসারিত অঙ্গ হিসাবে বর্ণনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উত্তর প্রদেশে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগ রাজ্যের ঐতিহ্যের অঙ্গ হয়ে রয়েছে। এ প্রসঙ্গে তিনি ভাদোহির কার্পেট শিল্প, মীরাটের ক্রীড়া সাজসরঞ্জাম, নির্মাণ শিল্প, বারানসীর দুগ্ধ শিল্প প্রভৃতির কথাও উল্লেখ করেন।

বারানসী ও পূর্বাঞ্চলকে হস্তশিল্প ও শিল্পকলার হাব বা মূল কেন্দ্র হিসাবে উল্লেখ করে শ্রী মোদী বলেন, বারানসী ও সংলগ্ন এলাকার ১০টি সামগ্রী জিওগ্রাফিক্যাল ইন্ডিকেশন বা সতন্ত্র ভৌগোলিক পরিচিতির স্বীকৃতি পেয়েছে। তিনি আরও বলেন, ‘এক জেলা, এক পণ্য’ প্রকল্পের মাধ্যমে উন্নত মানের যন্ত্র ও সাজসরঞ্জাম, প্রশিক্ষণ ও বিপণন সহায়তার ফলে শিল্পকলা ক্ষেত্র আরও প্রসারিত হবে। এই অনুষ্ঠানে ২ হাজার কোটি টাকা ঋণ সহায়তা প্রদানের ব্যাপারে তাঁকে অবহিত করা হয়েছে বলে শ্রী মোদী জানান।

তিনি বলেন, ‘এক জেলা এক পণ্য’ প্রকল্পে উৎপাদকদের সহায়তার পাশাপাশি উৎপাদিত সামগ্রীর বিপণনেও গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। দীনদয়াল হস্তকলা সঙ্কুল এই প্রকল্পের উদ্দেশ্যগুলি পূরণ করছে।

সাধারণ মানুষের জীবনযাপনের মানোন্নয়নের পাশাপাশি, সহজে ব্যবসা-বাণিজ্যের অনুকূল পরিবেশ গড়ে তুলতে কেন্দ্রীয় সরকার কাজ করেছে বলেও প্রধানমন্ত্রী জানান।

আজ চালু হওয়া পেনশন প্রদান কর্তৃপক্ষ ও পরিচালনা ব্যবস্থা ‘সম্পন্ন’ – এর কথা উল্লেখ করে শ্রী মোদী বলেন, এই ব্যবস্থার ফলে টেলিযোগাযোগ দপ্তরে পেনশন-প্রাপকরা বিশেষভাবে উপকৃত হবেন এবং সময় মতো পেনশন প্রদান আরও সরল হয়ে উঠবে।

সাধারণ মানুষের জীবনযাপনের মানোন্নয়নে প্রযুক্তির ব্যবহারের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী জানান, কেন্দ্রীয় সরকার একইভাবে নাগরিক-কেন্দ্রিক পরিষেবা প্রদানেও প্রযুক্তিকে কাজে লাগাচ্ছে। তিনি বলেন, ডাকঘরগুলির মাধ্যমে ব্যাঙ্কিং পরিষেবার বিস্তারে ইন্ডিয়া পোস্ট পেমেন্টস্‌ ব্যাঙ্ক বড় ভূমিকা নিয়ে চলেছে। 

গ্রামাঞ্চলে ডিজিটাল উপায়ে বিভিন্ন পরিষেবা প্রদানে ৩ লক্ষেরও বেশি অভিন্ন পরিষেবা কেন্দ্র কাজ করে চলেছে বলে জানিয়ে শ্রী মোদী দেশে ইন্টারনেট পরিষেবার ব্যাপক বিস্তারের কথা উল্লেখ করেন।

 

প্রসঙ্গত তিনি জানান, এক লক্ষেরও বেশি পঞ্চায়েত প্রতিষ্ঠান ব্রডব্যান্ড ব্যবস্থার মাধ্যমে যুক্ত হয়েছে। ডিজিটাল ইন্ডিয়া কর্মসূচি কেবলমাত্র মানুষকে সুবিধাই প্রদান করছে না, একই সঙ্গে সরকারি কাজকর্মে স্বচ্ছতা নিয়ে এসে দুর্নীতি দমনে বড় ভূমিকা নিয়েছে। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী সরকারি ই-মার্কেট প্লেস উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে বলেন, অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগগুলি এই উদ্যোগে বিশেষভাবে লাভবান হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগগুলির সার্বিক বিকাশে কেন্দ্রীয় সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ। এ ধরণের সংস্থাগুলিকে সরলশর্তে ঋণ সহায়তা দিয়ে সহজে ব্যবসা-বাণিজ্যের অনুকূল বাতাবরণ গড়ে তোলা সম্ভব হয়ে উঠছে।

শ্রী মোদী বলেন, তরল প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহের মাধ্যমে এই রাজ্যের পূর্বাঞ্চলে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা প্রদানে এবং শিল্পের বিস্তারে সর্বাত্মক প্রয়াস গ্রহণ করা হয়েছে। এ ধরণের প্রাকৃতিক গ্যাসের সুবিধা হ’ল – এটি রান্নার কাজেও ব্যবহার করা যায়। এজন্য বারানসীর হাজার হাজার বাড়িতে এ ধরণের গ্যাস পৌঁছে যাচ্ছে।

বারানসীতে গড়ে ওঠা আন্তর্জাতিক ধান্য গবেষণা প্রতিষ্ঠানের কথা উল্লেখ করে শ্রী মোদী বলেন, প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে কৃষি ক্ষেত্রকে আরও লাভজনক করে তোলার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত বহন করছে এই কেন্দ্রটি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কাশীর ব্যাপক রূপান্তর এখন সকলেরই দৃষ্টিগোচর হয়েছে। আজ যে সমস্ত প্রকল্পের সূচনা হয়েছে, সেগুলি এই শহরের আরও পরিবর্তন আনতে ব্যাপক সাহায্য করবে। গঙ্গানদীর পুনরুজ্জীবন তথা সংস্কারে কেন্দ্রীয় সরকারের দায়বদ্ধতার কথা পুনরায় উল্লেখ করে শ্রী মোদী বলেন, এই উদ্দেশ্য পূরণে জনগণের সমর্থনকে সর্বদাই স্বাগত জানানো হবে।

আগামী জানুয়ারি মাসের শেষ দিকে বারানসীতে আয়োজিত আসন্ন প্রবাসী ভারতীয় দিবস সাফল্যমণ্ডিত হয়ে উঠবে বলে প্রধানমন্ত্রী দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

 

Click here to read PM's speech

'মন কি বাত' অনুষ্ঠানের জন্য আপনার আইডিয়া ও পরামর্শ শেয়ার করুন এখনই!
Modi Govt's #7YearsOfSeva
Explore More
আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

জনপ্রিয় ভাষণ

আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
Agri, processed food exports buck Covid trend, rise 22% in April-August

Media Coverage

Agri, processed food exports buck Covid trend, rise 22% in April-August
...

Nm on the go

Always be the first to hear from the PM. Get the App Now!
...
PM’s Departure Statement ahead of his visit to USA
September 22, 2021
শেয়ার
 
Comments

I will be visiting USA from 22-25 September, 2021 at the invitation of His Excellency President Joe Biden of the United States of America

During my visit, I will review the India-U.S. Comprehensive Global Strategic Partnership with President Biden and exchange views on regional and global issues of mutual interest. I am also looking forward to meeting Vice President Kamala Harris to explore opportunities for cooperation between our two nations particularly in the area of science and technology.

I will participate in the first in-person Quad Leaders’ Summit along with President Biden, Prime Minister Scott Morrison of Australia and Prime Minister Yoshihide Suga of Japan. The Summit provides an opportunity to take stock of the outcomes of our Virtual Summit in March this year and identify priorities for future engagements based on our shared vision for the Indo-Pacific region.

I will also meet Prime Minister Morrison of Australia and Prime Minister Suga of Japan to take stock of the strong bilateral relations with their respective countries and continue our useful exchanges on regional and global issues.

I will conclude my visit with an Address at the United Nations General Assembly focusing on the pressing global challenges including the Covid-19 pandemic, the need to combat terrorism, climate change and other important issues.

My visit to the US would be an occasion to strengthen the Comprehensive Global Strategic Partnership with USA, consolidate relations with our strategic partners – Japan and Australia - and to take forward our collaboration on important global issues.