শেয়ার
 
Comments

সাল ১৯৯৫। গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে এই প্রথম জিতেছে বিজেপি। সদ্যজয়ের পর একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দল সরকার গড়ছে। দুমাস পর রাজ্যে পুর ভোট। তোড়জোড়চলছে পুরোদমে। মোদী একদিন ডাকলেন তাঁর গুটিকয়েক বিশ্বস্ত, অদলীয় কর্মী ও সহকারীকে।তাঁদের হাতে তুলে দিলেন এক যন্ত্র, যা এর আগে তাঁরা দেখেননি জিনিসটা তিনি হালেরবিদেশ সফরে গিয়ে নিয়ে এসেছেন এক ডিজিটাল ক্যামেরা। তাঁদের কাজ হল বিজেপিরনির্বাচনী প্রচারাভিযানকারী দলগুলির সঙ্গে রাজ্যের এমুড়ো-ওমুড়ো ঘোরা এবং যা তাঁরাদেখেছেন তা ডিজিটাল রেকর্ড করে রাখা লোকজন ও তাঁদের হাবভাব, তাঁদের সাজপোশাক,অভ্যাস-আচরণ, জনসভায় ভিড়ভাট্টা, কর্মস্থলে তাঁরা কি খায়, কি খেয়ে থাকেন চায়েরদোকানে গুজরাটের মূল প্রকৃতি ডিজিটাল মাধ্যমে ধরে রাখা। ভারত তো ছাড়, এটাপাশ্চাত্যে ডিজিটাল ক্যামেরা জনপ্রিয় হয়ে ওঠারও ঢের ঢের আগেকার কথা। 

 

সেই ইস্তক এই অভ্যাস মোদী বজায় রেখেছেন মোড় বা বাঁকের আগে থাকা,প্রথমে সম্ভাবনা দেখে ও তারপর সর্বাধুনিক প্রযুক্তিগত ও ডিজিটাল উদ্ভাবনকে আপন করেনিয়ে, শুধুমাত্র ব্যক্তিগতভাবে নয়, শাসনের মডেল হিসেবেও। এতে অবাক বনার তাই কিছুনেই যে কেবল রাজনীতিক মহল নয়, বস্তুত বৃহত্তর সমাজেও, মোদীই প্রথম নিছক একমুখীসম্প্রচার মাধ্যম নয়, বরং সমতুল্যদের মধ্যে দুমুখী ডিজিটাল সংযোগ প্রতিষ্ঠায়সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্ভাবনা দেখেন ও বুঝতে পেরেছিলেন। সোশ্যাল মিডিয়ার অংশভাগীরাগুজরাটের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা বা কথা বলতে পারতেন অনায়াসে। প্রধানমন্ত্রীহিসেবে, তাঁর প্রথম উদ্যোগগুলির মধ্যে অন্যতম হল ২০১৪-র জুলাইতে  MyGov  পোর্টাল-এর সূচনা মারফৎ এই সংযোগকে প্রাতিষ্ঠানিকরূপদান। এক বছর পর, সহানুভূতিশীল, স্বচ্ছ ও দায়বদ্ধ শাসন মডেলের সূচনা করে ডিজিটালভারত কর্মসূচি, যা কি না গুরুত্বপূর্ণ এক বিশেষ উদ্যোগের লক্ষণবিশিষ্ট। ক্যালিফোর্নিয়ারস্যান হোসেতে ডিজিটাল ভারত অনুষ্ঠানে তাঁর দর্শনের সারসংক্ষেপ করে মোদী বলেন, “কেউযখন সোশ্যাল মিডিয়া বা কোনও পরিষেবার তীব্র গতি ও পাল্লার কথা ভাবে, তখন তাঁকে মনেরাখতে হবে যে বহুদিন অবধি প্রায় আশা-ভরসাহীন লোকজনের জীবন বদলে দিতে পারাও একইভাবেসম্ভব। বন্ধুরা, তাইতো এই দৃঢ় প্রত্যয় বা বিশ্বাস থেকে উৎপত্তি হয়েছে ডিজিটালভারতের ধ্যানধারণা। ভারতকে বদলে দেওয়ার জন্য এই উদ্যোগ এমন এক ব্যাপক পাল্লা বামাত্রার, যা সম্ভবত মানুষের ইতিহাসে অদ্বিতীয়। ভারতের শুধুমাত্র সবচেয়ে দুর্বল,প্রত্যন্তবাসী ও গরিব নাগরিকদের জীবন স্পর্শ করা নয়, আমাদের দেশ যেভাবে জীবনকাটাবে ও কাজ করবে তার পথ পাল্টে দেওয়া 

ডোনেশন
Explore More
আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

জনপ্রিয় ভাষণ

আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
India’s forex reserves at new life-time high of $439.712 billion

Media Coverage

India’s forex reserves at new life-time high of $439.712 billion
...

Nm on the go

Always be the first to hear from the PM. Get the App Now!
...
ভারতের বৈশ্বিক অবস্থান নতুন উচ্চতায়!
April 23, 2019
শেয়ার
 
Comments

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভারতের বৈশ্বিক অবস্থানকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছেন, গোটা বিশ্ব তাঁর রূপান্তরমূলক নেতৃত্বের প্রশংসা করছে। তিনি অনেক দেশ এবং সংগঠনের সর্বোচ্চ সম্মানে ভূষিত হয়েছেন। 

অর্ডার অফ সেন্ট অ্যান্ড্রু দ্য অ্যাপস্টল: এপ্রিল ২০১৯

সম্প্রতি, "আন্তর্জাতিক স্তরে ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে কূটনীতিগত সম্পর্কের উন্নতিতে অনবদ্য অবদান ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক নিশ্চিত করার" জন্য রাশিয়া সরকার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে সে দেশের সর্বোচ্চ সম্মানে ভূষিত করেছে। 

অর্ডার অফ জায়েদ: এপ্রিল ২০১৯

সংযুক্ত আরব আমিরশাহী ২০১৯-র এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে সে দেশের সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মানে ভূষিত করেছে ভারত ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর মধ্যে কৌশলগত সম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য। 

প্রধানমন্ত্রী মোদী বিভিন্ন ধর্ম, ভাষা ও সংস্কৃতির মানুষ রয়েছে এমন দেশের প্রত্যেকের জন্য কাজ করছেন, এই সন্মান তারই স্বীকৃতি। .

সিওল শান্তি পুরস্কার ২০১৮ - অক্টোবর ২০১৮

ভারতীয় ও বিশ্ব অর্থনীতির বিকাশে অবদান রাখার জন্য ২০১৮-র অক্টোবর মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে সিওল শান্তি পুরস্কার প্রদান করা হয়। 

ধনী ও দরিদ্রের মধ্যে আর্থ-সামাজিক বৈষম্য দূরীকরণে মোদীনমিক্স নীতির প্রশংসা করেছে সিওল শান্তি কমিটি। দুর্নীতি দমনে বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং সরকারি ব্যবস্থাকে আরও স্বচ্ছ করতে প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত উদ্যোগগুলিরও অকুন্ঠ প্রশংসা করেছে কমিটি। 

মোদীর শাসনকালে’ 'অ্যাক্ট ইস্ট পলিসি' বা পূর্বে তাকাও নীতি এবং আঞ্চলিক ও বিশ্ব শান্তি রক্ষার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক অবদানকেও কমিটি বিশেষ কৃতিত্ব দিয়েছে। 

২০১৯-র ফেব্রুয়ারিতে দক্ষিণ কোরিয়া প্রজাতন্ত্র সফরকালে প্রধানমন্ত্রী মোদীর হাতে এই পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। 

সিওল শান্তি পুরস্কার ২০১৮ - অক্টোবর ২০১৮

 

ইউএনপি চ্যাম্পিয়নস্‌ অফ দ্য আর্থ পুরস্কার - সেপ্টেম্বর ২০১৮

'চ্যাম্পিয়নস্‌ অফ দ্য আর্থ' পুরস্কার পরিবেশ সংক্রান্ত ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপুঞ্জের সর্বোচ্চ সম্মান। 

আন্তর্জাতিক সৌরসংঘের কাজে নেতৃত্বদান ও ২০২২ সালের মধ্যে ভারতকে প্লাস্টিকমুক্ত করতে অভূতপূর্ব অঙ্গীকার গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে রাষ্ট্রসঙ্ঘের চ্যাম্পিয়নস্‌ অফ দ্য আর্থ সম্মানে ভূষিত করা হয়েছে।

 

গ্রান্ড কলার অফ স্টেট অব ফিলিস্তিন - ফেব্রুয়ারি ২০১৮

'গ্রান্ড কলার অফ স্টেট অব ফিলিস্তিন' হচ্ছে ফিলিস্তিনের সর্বোচ্চ পুরস্কার। 

ভারত ও ফিলিস্তিনের মধ্যে সম্পর্ক সর্বোচ্চ শিখরে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী মোদীর অবদানের জন্য গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে ফিলিস্তিন সফরকালে তাঁকে সে দেশের সর্বোচ্চ পুরস্কার গ্রান্ড কলার অফ স্টেট অব ফিলিস্তিন দেওয়া হয়।

 

আমির আমানুল্লাহ খান পুরস্কার জুন ২০১৬

২০১৬-র জুন মাসে আফগানিস্তান প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীকে সে দেশের সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান আমির আমানুল্লাহ খান পুরস্কার প্রদান করেছে।  

আফগান-ভারত মৈত্রী বাঁধের ঐতিহাসিক উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীকে এই সম্মান প্রদান করা হয়।

কিং আবদুল্লাজিজ সাশ পুরস্কার - এপ্রিল ২০১৬

২০১৬-র জুন মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে সেদেশের সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান দ্য কিং আবদুল্লাজিজ সাশ-এ ভূষিত করেছে সৌদি আরব। 

আধুনিক সৌদি আরবের প্রতিষ্ঠাতা আবদুল আজিজ আল সৌদের পর প্রধানমন্ত্রীকে এই পুরস্কার প্রদান করেন যুবরাজ সালমান বিন আবদুল আজিজ।