শেয়ার
 
Comments
PM Modi pays homage to Dr. Sree Sree Sree Sivakumara Swamigalu during #MannKiBaat, remembers his teachings
I commend the Election Commission for continuous efforts to strengthen our democracy: PM During #MannKiBaat
Upcoming Lok Sabha elections an opportunity for the first time voters of 21st century to take the responsibility of the nation on their shoulders: PM during #MannKiBaat
Subhas Babu will always be remembered as a heroic soldier and skilled organiser: PM during #MannKiBaat
For many years it was being demanded that the files related to Netaji should be made public and I am happy that we fulfilled this demand: PM during #MannKiBaat
Netaji had a very deep connection with the radio and he made it a medium to communicate with the countrymen: PM refers to Azad Hind Radio during #MannKiBaat
We all know Gurudev Rabindranath Tagore as a wonderful writer and a musician. But Gurudev was also a great painter too: PM during #MannKiBaat
#MannKiBaat: PM Modi remembers Sant Ravidas’ invaluable teachings, says He always taught the importance of “Shram” and “Shramik”
The contribution of Dr. Vikram Sarabhai to India's space programme is invaluable: Prime Minister during #MannKiBaat
The number of space missions that took place since the country's independence till 2014, almost the same number of space missions has taken place in the past four years: PM #MannKiBaat
India will soon be registering it’s presence on moon through the Chandrayaan-2 campaign: PM Modi during #MannKiBaat
PM Modi during #MannKiBaat: We are using Space Technology to improve delivery and accountability of government services
#MannKiBaat: Our satellites are a symbol of the country's growing power today, says PM Modi
Those who play, shine; when a player performs best at the local level then there is no about his or her best performance best at global level: PM #MannKiBaat
With the support of the people of India, today the country is rapidly moving towards becoming an open defecation free nation: PM during #MannKiBaat
More than five lakh villages and more than 600 districts have declared themselves open defecation free. Sanitation coverage has crossed 98% in rural India: PM during #MannKiBaat

আমার প্রিয় দেশবাসী, নমস্কার!

এমাসের ২১ তারিখে সারা দেশ এক গভীর শোকের সংবাদ পায়, কর্ণাটকের টুমকুর জেলার
শ্রী সিদ্ধ গঙ্গা মঠের  চিকিৎসক শ্রী শ্রী শিবকুমার স্বামী আর আমাদের মধ্যে নেই।  শিবকুমার স্বামী তাঁর গোটা জীবনটি সমাজ সেবার কাজে সমর্পণ করেছিলেন। ভগবান বসবেশ্বর আমাদের শিখিয়েছেন —’কায়কবেকৈলাশ’ — অর্থাৎ কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজের দায়িত্ব পালন করে যাওয়া, ভগবান শিবের নিবাস কৈলাশধামে পৌঁছোনরই সামিল। শিবকুমার স্বামী এই দর্শনে বিশ্বাসী ছিলেন এবং তিনি তাঁর ১১১বছরের জীবনকালে হাজার হাজার মানুষের সামাজিক, শিক্ষাগত এবং আর্থিক উন্নতির জন্যে কাজ করে গেছেন। তিনি এমনই একজন বিদ্বান মানুষ হিসেবে খ্যাত ছিলেন, একই সঙ্গে ইংরেজি, সংস্কৃত ও কন্নড় ভাষাতে যাঁর ছিল অদ্ভুত দখল। তিনি ছিলেন একজন সমাজ-সংস্কারক। মানুষের খাদ্য, আশ্রয়, শিক্ষা এবং আধ্যাত্মিকজ্ঞানের সংস্থানের জন্য তিনি তাঁর পুরো জীবনটাই উৎসর্গ করে দিয়েছিলেন। তাঁর প্রথম চাহিদাই ছিল কৃষকদের সার্বিক কল্যাণ সাধন। সিদ্ধ গঙ্গামঠ নিয়মিত পশু এবং কৃষিমেলার আয়োজন করে। আমার সৌভাগ্য হয়েছে বেশকয়েকবার পরম পূজনীয় স্বামীজীর আশীর্বাদ লাভ করার। ২০০৭ সালে শিবকুমার স্বামীর শতবর্ষ উপলক্ষে পূর্ববর্তী রাষ্ট্রপতি ডঃ এ. পি. জে. আবদুল কালাম টুমকুর গিয়েছিলেন। শ্রদ্ধেয় স্বামীজীর উদ্দেশে কালাম সাহেব একটি কবিতাও শুনিয়েছিলেন।  তিনি বলেছিলেন —

” হে আমার সহ-নাগরিকবৃন্দ — দানের মধ্যেই আপনারা সুখের আস্বাদ পাবেন।

দেহে এবং মনে আপনার কত কিছুই না দেবার আছে।

যদি আপনার জ্ঞান থাকে, তা ভাগ করে নিন

যদি সম্পদ থাকে, তার সদ্ব্যবহার করুন

দরিদ্র, নিঃস্ব মানুষদের জন্যে

যন্ত্রণার কষ্টটাকে লাঘব করতে

ভারাক্রান্ত হৃদয়কে উজ্জ্বীবিত করতে

আপনি নিজের মন ও হৃদয় দিয়ে সচেষ্ট হোন

সর্বশক্তিমান ঈশ্বর আপনাকে এবং আপনার

সমস্ত প্রচেষ্টাকে আশীর্বাদ করবেন।”

ডঃ কালামের এই কবিতা শ্রী শ্রী শিবকুমার স্বামীর জীবন এবং সিদ্ধগঙ্গামঠের লক্ষ্যকে সুন্দরভাবে প্রকাশ করেছে।  এমন এক মহাপুরুষকে আমি আরও একবার আন্তরিক শ্রদ্ধা জানাই।

আমার প্রিয় দেশবাসী, ১৯৫০ সালের ২৬শে জানুয়ারি আমাদের দেশের সংবিধান প্রবর্তিত হয়েছিল, দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ওই দিনটিতেই। গতকালই আমরা উৎসাহ উদ্দীপনার সঙ্গে সাধারণতন্ত্র দিবসও পালন করেছি।  কিন্তু আজ আমি এই বিষয়ে অন্য কিছু কথা বলতে চাই।  আমাদের দেশে এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা আছে, যা দেশের সাধারণতন্ত্রের অভিন্ন অঙ্গতো বটেই — এই গণতন্ত্রের চেয়েও তা প্রাচীন।  আমি ভারতের নির্বাচন কমিশনের কথা বলছি।  ২৫-শে জানুয়ারি ছিল নির্বাচন কমিশনের প্রতিষ্ঠা দিবস — ‘ন্যাশনাল ভোটারস ডে’ হিসেবে যেটি পালিত হয়ে থাকে।  ভারতে যে ব্যাপ্তিতে নির্বাচনের আয়োজন হয় তা দেখে সারা দুনিয়া অবাক হয়ে যায়, যে দক্ষতার সঙ্গে আমাদের নির্বাচন কমিশন এই আয়োজন করে, তা দেখে প্রত্যেক দেশবাসীর এই সংস্থাটির জন্যে গর্ব হওয়াই স্বাভাবিক। ভারতের প্রতিটি নাগরিক, যিনি নথিভুক্ত অর্থাৎ রেজিস্টার্ড ভোটার, তিনি যাতে ভোট দিতে পারেন, তা সুনিশ্চিত করার জন্যে আমাদের দেশে চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখা হয়না।

হিমাচল প্রদেশে সমুদ্রতল থেকে ১৫ হাজার ফিট ওপরের এলাকাতেও যেমন নির্বাচন কেন্দ্র স্থাপিত হয়, তেমনই আন্দামান-নিকোবরের দূরবর্তী দ্বীপগুলিতেও ভোটিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে। এছাড়া গুজরাতের সেই কেন্দ্রটির কথাতো আপনারা নিশ্চয়ই শুনেছেন যেখানে গিরঅরণ্যের মধ্যে মাত্র একজন ভোটদাতার জন্যে একটি পোলিং বুথ করা হয়।  কল্পনা করুন, মাত্র একজন ভোটদাতার জন্যে। এসব কথা শুনলে নির্বাচন কমিশনের জন্যে গর্ব হওয়া খুবই স্বাভাবিক। ওই একজন মাত্র ভোটদাতার কথা খেয়াল রেখে, তিনি যাতে তাঁর মত প্রকাশের সুযোগ পান তার জন্যে, নির্বাচন কমিশনের কর্মচারীদের পুরো টিম ওই দূরবর্তী কেন্দ্রে গিয়ে ভোটদানের ব্যবস্থা করেন— আর এটাই হল আমাদের সাধারণতন্ত্রের সৌন্দর্য। আমাদের লোকতন্ত্রকে মজবুত করতে নিরন্তর প্রচেষ্টা চালানোর জন্যে আমি নির্বাচন কমিশনের প্রশংসা করি। প্রত্যেকটি রাজ্যে নির্বাচন কমিশন, যাবতীয় সুরক্ষা কর্মী এবং অন্যান্য কর্মচারীবৃন্দ যাঁরা নির্বাচন প্রক্রিয়ায় অংশ নেন এবং স্বাধীন ও পক্ষপাতহীন নির্বাচন সুনিশ্চিত করেন তাঁদের সকলকে আমি সাধুবাদ জানাই।

এই বছর আমাদের দেশে লোকসভা নির্বাচন হবে। একবিংশ শতাব্দীতে জন্ম নেওয়া যুবক-যুবতীদের লোকসভা নির্বাচনে নিজেদের ভোট দেওয়ার এটাই হবে প্রথম সুযোগ। তাঁদের কাছে দেশের দায়িত্ব নিজেদের কাঁধে নেওয়ার সময় এসে গেছে। দেশের বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে তাঁরা অংশগ্রহণ করতে চলেছেন। দেশের স্বপ্নের সঙ্গে নিজেদের স্বপ্নকে মিলিয়ে নেওয়ার সময় এসে গেছে। আমি যুবসম্প্রদায়কে অনুরোধ করব যে তাঁরা যদি ভোটদানের উপযুক্ত হন তাহলে ভোটার তালিকায় তাঁদের নাম নথিভুক্ত করুন। আমাদের প্রত্যেকেরই এই উপলব্ধি হওয়া উচিত যে ভোটার হওয়া, ভোটদানের অধিকার পাওয়া জীবনের গুরুত্বপূর্ণ উপলব্ধিগুলির মধ্যে একটি বিশেষ উপলব্ধি। একই সঙ্গে ভোট দেওয়া আমার কর্তব্য —এই ভাবনাও যেন আমাদের মধ্যে জন্ম নেয়।যদি কোনও কারণবশতঃ ভোটদানে অসমর্থ হন, তাহলে খুবই মানসিক কষ্ট পাওয়া উচিত।যদি দেশে কোথাও অনৈতিক কিছু হতে দেখেন তাহলে দুঃখ পাওয়া উচিত।আমি ভোট দিইনি — আমি ওই দিন ভোট দিতে যাইনি — আজ আমাদের দেশ এই সিদ্ধান্তের কুফল ভোগ করছে। এই দায়িত্ব সম্পর্কে আমাদের সজাগ হওয়া প্রয়োজন। এটি আমাদের প্রবৃত্তি, আমাদের সংস্কারের অঙ্গ হওয়া উচিত। আমি দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অনুরোধ করব যে আসুন, আমরা সবাই মিলে অভিযান চালিয়ে ভোটার তালিকায় নাম নথিভুক্তকরণ এবং নির্বাচনের দিন ভোটদানের বিষয়ে জনসাধারণকে সজাগ করি। আমার বিশ্বাস, অধিক সংখ্যক যুবক-যুবতী ভোটার তালিকায় তাঁদের নাম নথিভুক্ত করাবেন এবং নিজেদের অংশীদারিত্বে আমাদের গণতন্ত্রকে সুদৃঢ় করবেন।

আমার প্রিয় দেশবাসী, ভারতের এই পবিত্রভূমি অনেক মহাপুরুষের জন্ম দিয়েছে।এই সব মহামানব মানবতার জন্য কিছু অদ্ভুত এবং অবিস্মরণীয় কাজ করেছেন। আমাদের দেশ বহুরত্ন-বসুন্ধরা। এই সমস্ত মহাপুরুষদের একজন ছিলেন নেতাজী সুভাষচন্দ্র বোস। ২৩-শে জানুয়ারি সমগ্র দেশ বিভিন্নভাবে তাঁর জন্মদিন পালন করেছে। নেতাজীর জন্মদিনে ভারতের স্বাধীনতা যুদ্ধে যাঁরা অংশগ্রহণ করেছিলেন, সেইসব বীরসেনানীদের উদ্দেশে সমর্পিত এক সংগ্রহশালার উদ্বোধন করার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। আপনারা জানেন যে স্বাধীনতার পর থেকে এখনও পর্যন্ত লালকেল্লার ভিতর বেশকিছু ঘর-বাড়ি বন্ধপড়েছিল। লালকেল্লার সেই সমস্ত বন্ধঘরগুলিকে খুব সুন্দর একটি সংগ্রহশালার রূপ দেওয়া হয়েছে। নেতাজী সুভাষচন্দ্র বোস এবং ইণ্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মি-র উদ্দেশে সমর্পিত সংগ্রহশালা ‘ইয়াদ-এ-জলিয়াঁ’ এবং ১৮৫৭-র ভারতের প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রতি সমর্পিত সংগ্রহশালা—এই সম্পূর্ণ পরিসরকে ‘ক্রান্তি মন্দির’ রূপে দেশকে সমর্পণ করা হয়েছে। এই সংগ্রহশালার প্রতিটি ইঁটে আমাদের গৌরবশালী ইতিহাসের সৌরভ রয়েছে। এই সংগ্রহশালায় স্তরেস্তরে বর্ণিত আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের বীর সেনানীদের কাহিনি আমাদের ইতিহাসের দিকে ফিরে তাকাতে অনুপ্রাণিত করবে। এইখানে ইংরেজ শাসকরা ভারতমায়ের বীর সন্তান কর্ণেল প্রেমসেহগল, কর্ণেল গুরু বক্সসিংহধীলঁ এবং মেজর জেনারেল শাহনওয়াজ খানের বিচার করেছিল। আমি যখন লালকেল্লার ক্রান্তি মন্দিরে নেতাজীর সঙ্গে সম্পর্কিত জিনিষগুলি দেখছিলাম, তখন নেতাজীর পরিবারের সদস্যরা আমাকে একটি বিশেষ ধরনের টুপি উপহার দেন। এক সময় নেতাজী এই টুপি ব্যবহার করতেন। এই টুপিটি আমি সংগ্রহশালায় রাখার ব্যবস্থা করেছি, যাতে সংগ্রহশালা দেখতে আসা মানুষ এই টুপিটি দেখেন এবং দেশভক্তির অনুপ্রেরণা পান। আমাদের দেশনায়কদের শৌর্য,  দেশভক্তির কথা আমাদের নবীন প্রজন্মের কাছে বিভিন্ন মাধ্যমে নিরবচ্ছিন্নভাবে পৌঁছে দেওয়া প্রয়োজন। এই মাসখানেক আগে — গত ৩০শে ডিসেম্বর আমি আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে গিয়েছিলাম। নেতাজী সুভাষচন্দ্র বোস ৭৫বছর আগে যেখানে প্রথম ত্রিবর্ণ পতাকা উত্তোলন করেছিলেন ঠিক সেই একই জায়গায় এক অনুষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। একইভাবে ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে যখন লালকেল্লাতে ত্রিবর্ণ পতাকা উত্তোলন করা হয়,  তখন সবাই আশ্চর্য হয়েছিল, কেননা ওখানেতো সাধারণভাবে ১৫-ই আগষ্ট দিনটিতেই পতাকা উত্তোলনের পরম্পরা আছে। কিন্তু সেটা ছিল আজাদ হিন্দ সরকার গঠনের ৭৫বছর পূর্ণ হওয়ার ঘটনা। একজন বীরসৈনিক এবং একজন কুশল সংগঠক রূপে সুভাষবাবুকে সর্বদা স্মরণ করা হবে। এমনই একজন বীরসৈনিক, যিনি স্বাধীনতার যুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। “দিল্লি চলো”, “তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাদের স্বাধীনতা দেব” —এই ধরনের তেজস্বী স্লোগান দিয়ে নেতাজী সমস্ত ভারতবাসীর অন্তরে স্থান করে নিয়েছেন। বেশকিছু বছর যাবৎ একটা দাবী ছিল যে নেতাজী সম্পর্কিত সব ফাইল সার্বজনিক করতে হবে। আমি আনন্দিত যে আমরা এই কাজ সম্পন্ন করতে পেরেছি। সেইদিনটি আমার মনে আছে, যেদিন নেতাজীর পরিবারের সকলে প্রধানমন্ত্রীর বাসস্থানে এসেছিলেন। আমরা সকলে মিলে নেতাজী সম্পর্কিত অনেক কথা আলোচনা করেছিলাম এবং নেতাজী সুভাষ বসুকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেছিলাম।

আমি আনন্দিত যে ভারতের মহাননায়কদের স্মৃতি বিজড়িত বেশকিছু জায়গাকে দিল্লিতে প্রদর্শনের চেষ্টা করা হচ্ছে। সেটা বাবা সাহেব আম্বেদকরের সঙ্গে সম্পর্কিত ২৬, আলিপুর রোড হোক বা সর্দার প্যাটেল সংগ্রহশালা, অথবা ক্রান্তি মন্দির। আপনারা দিল্লি এলে এই জায়গাগুলি অবশ্যই দেখবেন।

আমার প্রিয় দেশবাসী, আজ আমরা যখন নেতাজী সুভাষচন্দ্র বোসের সম্পর্কে আলোচনা করছি এবং সেটা ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে, তখন আমি নেতাজীর জীবনের একটি ঘটনা আপনাদের জানতে চাই। আমি সবসময়ই সাধারণ মানুষের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য রেডিওকে এক গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসেবে মান্যতা দিই। সেরকমই রেডিওর সঙ্গে নেতাজীর খুব গভীর
সম্পর্ক ছিল। দেশবাসীর সঙ্গে বার্তা আদান-প্রদানের জন্য উনিও রেডিওকেই বেছে নিয়েছিলেন।সন ১৯৪২-এ সুভাষচন্দ্র বোস আজাদ হিন্দ রেডিও-র শুভারম্ভ করেছিলেন এবং রেডিওর মাধ্যমে তিনি আজাদ হিন্দ ফৌজের সৈনিকদের এবং দেশের মানুষের কাছে বার্তা পৌঁছে দিতেন। সুভাষচন্দ্র বোসের রেডিওতে কথা শুরু করার এক বিশেষ ধরন ছিল। সবার আগে তিনি বলতেন – This is Subhash Chandra Bose speaking to you over the Azad Hind Radio, আর এইটুকু শুনেই শ্রোতাদের মনে এক নতুন উত্তেজনা, এক নতুন শক্তি সঞ্চারিত হত।

আমাকে জানানো হয়েছে যে, রেডিও স্টেশন সাপ্তাহিক খবরও প্রচার করত ইংরেজী, হিন্দী, তামিল, বাংলা, মারাঠী, পাঞ্জাবী, পুস্তু, ঊর্দু ইত্যাদি ভাষাতে। এই রেডিও স্টেশন চালাতে গুজরাত নিবাসী এম. আর.ব্যাস মহাশয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। আজাদ হিন্দ রেডিওতে প্রচারিত অনুষ্ঠান সাধারণ মানুষের মধ্যে খুব জনপ্রিয় ছিল এবং এই অনুষ্ঠানগুলি আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামীদেরও উৎসাহিত করেছিল।

এই ক্রান্তি মন্দিরে একটি চিত্রসংগ্রহশালাও তৈরি হয়েছে। ভারতীয় কলা ও সংস্কৃতিকে আকর্ষণীয় করার এটা হলো আরো এক প্রচেষ্টা। মিউজিয়ামে চারটি ঐতিহাসিক exhibition আছে আর সেখানে তিন প্রজন্মের পুরানো ৪৫০এরও বেশি painting  আর art work সংরক্ষিত আছে।এখানে আমৃতাশের গিল, রাজার বিবর্মা, অবনিন্দ্রনাথ ঠাকুর, গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর, নন্দলাল বোস, যামিনী রায়, শৈলজ মুখার্জীদের মতো মহান শিল্পীদের শ্রেষ্ঠ শিল্পকলা সুন্দরভাবে প্রদর্শিত হয়েছে। আমি আপনাদের প্রত্যেককে বিশেষভাবে অনুরোধ করবো এই মিউজিয়ামে আসুন এবং গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সৃষ্টিকে যেন অবশ্যই দেখুন।

আপনারাহয়তভাবছেনযেযখনশিল্পকলানিয়েকথাহচ্ছে, আমিআপনাদেরগুরুদেবরবীন্দ্রনাথঠাকুরেরসৃষ্টিকেদেখারকথাকেনবলছি।আপনারাএখনওপর্যন্তগুরুদেবরবীন্দ্রনাথঠাকুরকেলেখকএবংসংগীতশ্রষ্টাহিসেবেইজানেন, কিন্তুআমিবলতেচাইগুরুদেবএকজনচিত্রশিল্পীওছিলেন।তিনিঅনেকবিষয়েpainting তৈরিকরেছেন। তিনিপশুপাখিদেরওছবিএকেঁছেন, এরমধ্যেঅনেকপ্রাকৃতিকসৌন্দর্যেরছবিওরয়েছে, এছাড়াওতিনিhuman character-কেশিল্পকলারমাধ্যমেcanvass-এফুটিয়েতুলেছেন।আরআশ্চর্যেরকথাহলোগুরুদেবরবীন্দ্রনাথঠাকুরএইশিল্পকলারবেশিরভাগেরইকোনওনামরাখেননি।উনিমানতেনযেওঁরpainting-কেদর্শকরানিজেরাইনিজেদেরমতকরেবুঝুন,তাঁরাইতাঁদেরদৃষ্টিদিয়েশিল্পীরসৃষ্টিকেজানুন।ওঁরpainting-গুলিইউরোপেরবিভিন্নদেশে, রাশিয়াএবংআমেরিকাতেওপ্রদর্শিতহয়েছে।আমিআশাকরিআপনারাক্রান্তিমন্দিরেতাঁরpaintingঅবশ্যইদেখতেযাবেন।

আমারপ্রিয়দেশবাসী, ভারতসাধুসন্তদেরভূমি।আমাদেরসন্ত’রানিজেদেরমতামতএবংকাজেরমাধ্যমেসদ্ভাব, সাম্যএবংসামাজিকক্ষমতায়নেরবাণীদিয়েছেন।এরকমইএকসন্তছিলেন – সন্তরবিদাস।১৯শেফেব্রুয়ারীরবিদাসেরজন্মজয়ন্তী।  সন্তরবিদাসেরদোঁহাখুবইবিখ্যাত।সন্তরবিদাসজীকয়েকলাইনেরমধ্যেইবড়বড়লোকশিক্ষাদিয়েগেছেন।তিনিবলেছিলেন—

জাতি-জাতিমেজাতিহ্যায়

জোকেতনকেপাত,

রৈদাসমনুষনাজুড়সকে

যবতকজাতিনাজাত

যেভাবেকলাগাছকেছাড়ালেপাতারনীচেপাতাতারনীচেআবারপাতাথাকে, অবশেষেআরকিছুইথাকেনা,ঠিকসেইরকমইমানুষকেবিভিন্নজাতিতেভাগকরেদেওয়ারফলেমানুষআরমানুষনেই।তিনিবলতেনযদিবাস্তবেভগবানসবমানুষেরমধ্যেথাকেনতাহলেজাতি, ধর্মআরসামাজিককর্মেরভিত্তিতেভেদাভেদউচিৎনয়।

গুরুরবিদাসবারাণসীরপবিত্রমাটিতেজন্মেছিলেন।সন্তরবিদাসজীজীবনভরশ্রমওশ্রমিকেরগুরুত্ববোঝানোরপ্রয়াসকরেগেছেন।এটাবলাভুলহবেনাযেতিনিগোটাপৃথিবীকেশ্রমেরগুরুত্বেরবাস্তবঅর্থবুঝিয়েছেন।তিনিবলতেন, মনযদিঠিকথাকেতবেস্বল্পতেইমানুষসন্তুষ্টথাকে।অর্থাৎযদিআপনারমনআরহৃদয়পবিত্রহয়,তাহলেস্বয়ংঈশ্বরআপনারহৃদয়েবসবাসকরবেন।সন্তরবিদাসেরবার্তাসববর্ণেরমানুষকেপ্রভাবিতকরেছিল।চিতোরেরমহারাজাবামহারানীথেকেমীরাবাঈপর্যন্তসবাইতাঁকেঅনুসরণকরতেন।আমিআরএকবারসন্তরবিদাসকেপ্রণামজানাচ্ছি।

আমারপ্রিয়দেশবাসী, কিরণসিদর ‘মাইগভ’-এলিখেছেনযেআমিযেনভারতেরমহাকাশগবেষণাআরতারভবিষ্যতেরসঙ্গেসংশ্লিষ্টসবকিছুরওপরআলোকপাতকরি।তিনিআমারকাছেএইআবেদনওকরেনযাতেআমিশিক্ষার্থীদেরমহাকাশগবেষণায়আগ্রহীহওয়ারকথাবলি।কিরণজী, আমিআপনারএইচিন্তাভাবনা,বিশেষতআমাদেরনবীনদেরজন্যপ্রেরিতএইবার্তাকেসাধুবাদজানাই।

কিছুদিনআগেআমিআমেদাবাদেছিলাম।সেখানেডঃবিক্রমসারাভাইয়েরমূর্তিরআবরণউন্মোচনকরারসুযোগপেয়েছিলাম।ডঃবিক্রমসারাভাইভারতেরমহাকাশগবেষণায়গুরুত্বপূর্ণঅবদানরেখেছেন।আমাদেরস্পেসপ্রোগ্রামেদেশেরঅসংখ্যযুব-বৈজ্ঞানিকজড়িত।আমিএইবিষয়েগর্ববোধকরিযেআজআমাদেরছাত্রদেরতৈরি ‘স্যাটেলাইট’ এবং ‘সাউণ্ডিংরকেট’ মহাকাশেপৌঁছেগেছে।গত২৪-শেজানুয়ারিআমাদেরছাত্রদেরতৈরি ‘কলাম-স্যাট’উৎক্ষেপণকরাহয়েছে।ওড়িশারবিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদেরতৈরি ‘সাউণ্ডিংরকেট’-ওদৃষ্টান্তস্থাপনকরেছে।দেশস্বাধীনহওয়ারপরথেকে২০১৪পর্যন্তযতগুলিমহাকাশঅভিযানহয়েছে, প্রায়সমসংখ্যকঅভিযানগতচারবছরেহয়েছে।আমরাএকটিমহাকাশযানথেকেএকসঙ্গে১০৪-টিস্যাটেলাইটউৎক্ষেপণকরেবিশ্বরেকর্ডস্থাপনকরেছি।আমরাশীঘ্রইচন্দ্রায়ণ-২অভিযানেরমাধ্যমেচাঁদেভারতেরপারাখারব্যবস্থাকরছি।

আমাদেরদেশখুবসুন্দরভাবেমহাকাশপ্রযুক্তিব্যবহারকরছেদেশেরমানুষআরসম্পত্তিরক্ষাকরবারজন্য।রাস্তাঘাটেরসুরক্ষা, রেলপথেরসুরক্ষাবাসাইক্লোনেরআগামসতর্কবার্তা— সবক্ষেত্রেইমহাকাশপ্রযুক্তিরসাহায্যনেওয়াহচ্ছে।আমাদেরমৎস্যজীবীদেরজন্যেNAVICযন্ত্রবিতরণকরাহয়েছেযেটাশুধুতাদেরনিরাপত্তাইদেবেনা, আর্থিকউন্নতিতেওসাহায্যকরবে।সরকারিপরিষেবাঠিকঠাকপৌঁছেদিতেএবংতারদায়বদ্ধতাসুনিশ্চিতকরতেমহাকাশপ্রযুক্তিব্যবহারকরাহচ্ছে।

‘হাউসিংফরঅল’ অর্থাৎসবারজন্যবাসস্থান— এইপরিকল্পনায়তেইশটিরাজ্যেপ্রায়চল্লিশলক্ষগৃহকেGeo Tagকরাহয়েছে।এরইসঙ্গে‘মনরেগা’-রঅধীনেপ্রায়সাড়েতিনকোটিসম্পত্তিকেওGeo Tagকরাহয়েগেছে।আমাদেরএইসবস্যাটেলাইট, দেশেরক্রমবর্ধমানশক্তিরপ্রতীক।বিশ্বেরঅনেকদেশেরসঙ্গেভালোসম্পর্কেরগড়েওঠারক্ষেত্রেআমাদেরএইএরঅবদানআছে।

সাউথএশিয়াsatellitesএকটাঅনন্যউদ্যোগযেটারমাধ্যমেআমাদেরপ্রতিবেশীদেশগুলিরউন্নতিসাধনহয়েছে।ভারততারপ্রতিযোগিতামূলকউৎক্ষেপণপরিষেবারমাধ্যমেশুধুবিকাশশীলদেশনয়, পৃথিবীরউন্নতদেশেরsatellite-ওমহাকাশেছেড়েছে।ছোটদেরজন্যেআকাশএবংতারাচিরকালইআকর্ষণীয়ওবিস্ময়কর।আমাদেরএইমহাকাশকর্মসূচি, ছোটদেরবড়স্বপ্নদেখায়, সীমানাঅতিক্রমকরারসুযোগকরেদেয়, যাকেএরআগেঅসম্ভবমনেকরাহতো।এতেআমাদেরদেশেরছোটরাশুধুযেমুগ্ধবিস্ময়েতারাদেরদেখবেতাইনয়, তারসঙ্গেনতুননতুনতারারঅনুসন্ধানকরারওপ্রেরণাপাবে।

আমারপ্রিয়দেশবাসী।সবসময়বলেএসেছি, যেখেলে, সেফুলেরমতোইফোটে।এবারে‘খেলোইন্ডিয়াyouthগেমস’-এঅনেকতরুণওযুবখেলোয়াড়েরপ্রতিভাপ্রকাশ  পেয়েছে।Januaryমাসেপুনেতেঅনুষ্ঠিতএইগেমসের18টিখেলাধুলায়প্রায়৬০০০খেলোয়াড়অংশনেন।

যখনআমাদেরদেশেখেলাধুলারপরিবেশটিমজবুতহবে, অর্থাৎযখনভিতমজবুতহবে, তখনইআমাদেরযুবকরাদেশওদুনিয়াতেনিজেরক্ষমতারশ্রেষ্ঠপ্রদর্শনকরতেপারবে।স্থানীয়অর্থাৎআঞ্চলিকস্তরেখেলোয়াড়যখনতারসর্বোত্তমদক্ষতাপ্রদর্শনকরবেতখনইসেবিশ্বেরদরবারেসর্বোত্তমপ্রদর্শনকরবে।

এবারKhelo Indiaপ্রতিযোগিতায়প্রত্যেকটিরাজ্যেরখেলোয়াড়তাদেরনিজেরস্তরেউল্লেখযোগ্যকৃতিত্বদেখিয়েছেন।যাঁরাপদকজিতেছেনতাঁদেরঅনেকেরইজীবনবিশেষপ্রেরণাদায়ক।যুবমুষ্টিযোদ্ধাআকাশগোর্খারৌপ্যপদকপেয়েছেন।আমিএকজায়গায়পড়েছিলামযেআকাশেরপিতারমেশজীপুনেরএকটিআবাসনেপাহারাদারেরকাজকরেন।তাঁরাসপরিবারেগাড়িরাখারশেডেরমধ্যেথাকেন।অন্যদিকেমহারাষ্ট্রেরঅনুর্ধএকুশমহিলাকবাডিদলেরঅধিনায়িকাসোনালীহেলভীসাতারাতেথাকেন।খুবঅল্পবয়সেবাবাকেহারানোরপরমাআরভাইসোনালীরস্বপ্নকেবাস্তবায়িতকরতেসাহায্যকরেছেন।সাধারণতকবাডিরমতোখেলায়মেয়েদেরউৎসাহিতকরাহয়না।তত্সত্বেওসোনালীহেলভীকবাডিকেবেছেছেনএবংতাতেদক্ষতাদেখিয়েছেন।

আসানসোলনিবাসী১০বছরেরঅভিনবশাkhelo india youthগেমস-এরসর্বকনিষ্ঠস্বর্ণপদকবিজেতা।কর্ণাটকেরএকটিকৃষকপরিবারেরমেয়েAkshata Baswani Kamtiভারোত্তলনেস্বর্ণপদকজিতেছে।এইবিজয়েরমুকুটসেনিজেরবাবাকেদিয়েছে।তারবাবাবেলগাঁওয়েরএককৃষক।যখন‘নবভারত’-এরনির্মাণেরকথাবলছি, তখনএইযুবশক্তিরযেসংকল্প —এটাইতোসেইনতুনভারত।

খেলোইন্ডিয়ারএইকাহিনিগুলোপ্রমাণকরেযেনবভারতেরনির্মাণশুধুমাত্রবড়শহরবামহানগরেরমানুষেরদ্বারাহবেনা, বরঞ্চতাতে ছোটশহর, মফস্বল, গ্রামথেকেআসাশিশু, যুবকএবংতরুণখেলোয়াড়দেরবড়অবদানরয়েছে।

আমারপ্রিয়দেশবাসী, আপনারানিশ্চয়ইঅনেকবিখ্যাতবিউটিকনটেস্ট-এরবিষয়েশুনেথাকবেন।কিন্তুকখনওশৌচাগারচমকানোরকোনওপ্রতিযোগিতারবিষয়েকিছুশুনেছেন? জেনেঅবাকহবেন,গতপ্রায়একমাসধরেচলাএইআশ্চর্যপ্রতিযোগিতায়৫০লাখেরওবেশিশৌচালয়এরমধ্যেইঅংশগ্রহণকরেছে।আরএইআশ্চর্যপ্রতিযোগিতারনামহল ‘স্বচ্ছসুন্দরশৌচালয়’।মানুষএখননিজেরশৌচালয়কেপরিষ্কার-পরিচ্ছন্নরাখারপাশাপাশিরঙতুলিদিয়েরঙিনছবিতেসাজিয়েওতুলছে।কাশ্মীরথেকেকন্যাকুমারী, কচ্ছথেকেকামরূপ — এই‘স্বচ্ছসুন্দরশৌচালয়েরপ্রচুরসুন্দরসুন্দরছবিআপনিচাইলেইসোস্যালমিডিয়াতেদেখতেপাবেন।এইপ্রসঙ্গেআমিওসরপঞ্চআরগ্রামপ্রধানদেরনিজেরনিজেরএলাকায়এইঅভিযানেরনেতৃত্বদানেরজন্যআহ্বানকরছি।প্রত্যেকেরনিজেরস্বচ্ছসুন্দরশৌচালয়েরছবি#MyIzzatGharলিখেসোশ্যালমিডিয়ায়অবশ্যইশেয়ারকরুন।

বন্ধুরা, ২০১৪সালের২-রাঅক্টোবরআমরাআমাদেরদেশকেপরিচ্ছন্নকরেতোলাএবংখোলাজায়গায়শৌচমুক্তকরারজন্যএকসঙ্গেএকচিরস্মরণীয়যাত্রাশুরুকরেছিলাম।ভারতেরপ্রত্যেকেরসহযোগিতায়আজ২-রাঅক্টোবর, ২০১৯-এরঅনেকআগেইখোলাজায়গায়শৌচ-মুক্তহওয়ারদিকেআমরাঅনেকএগিয়েগেছি,যাবাপুজীরসার্ধশতজন্মজয়ন্তীতেতাঁকেআমরাউৎসর্গকরতেপারব।

স্বচ্ছভারতেরএইচিরস্মরণীয়যাত্রায় ‘মনকিবাত’-এরশ্রোতাদেরঅনেকবড়
ভূমিকাছিল।তাইএইকথাআজআপনাদেরসঙ্গেভাগকরেনিতেখুবআনন্দহচ্ছেযে,৫লক্ষ৫০হাজারেরবেশিগ্রামএবং৬০০জেলা ‘খোলাজায়গায়শৌচমুক্ত’ ঘোষিতহয়েগেছে।গ্রামীণভারতের৯৮শতাংশএলাকাইস্বচ্ছতারআওতায়এসেছে।তাছাড়া, আরওবড়ব্যাপারহলযেপ্রায়নয়কোটিপরিবারকেশৌচালয়েরসুবিধাদেওয়াগেছে।

আমারছোট্টবন্ধুরা, পরীক্ষারদিনএগিয়েআসছে।হিমাচলপ্রদেশথকেঅংশুলশর্মাmygov–এলিখেছেযে, এইসবপরীক্ষাএবংতারপরীক্ষার্থী-যোদ্ধাদেরনিয়েআমায়কিছুবলতেহবে।অংশুলজী,এইপ্রসঙ্গতোলারজন্যআপনাকেঅনেকধন্যবাদ।হ্যাঁ, কিছুপরিবারেরকাছেএইপরীক্ষারমরশুমটাইঅগ্রাধিকারপায়।শিক্ষার্থী,তাদেরবাবা-মাএবংশিক্ষক-শিক্ষিকা —পরীক্ষারসঙ্গেযুক্তপ্রত্যেকেইভীষণব্যস্তথাকে।

আমিপ্রত্যেকশিক্ষার্থী, তাদেরমা-বাবাআরশিক্ষকদেরশুভকামনাজানাই।আজকেরএই ‘মনকিবাত’ অনুষ্ঠানেআমারএইবিষয়েকথাবলতেভালোলাগতো, কিন্তুআপনারাএকথাজেনেখুশিহবেনযে —আগামী২৯-শেজানুয়ারিসকাল১১-টায় ‘পরীক্ষাপেচর্চা’ এইঅনুষ্ঠানেআমিসারাদেশেরপরীক্ষার্থীদেরসঙ্গেকথাবলব।এবারপড়ুয়াদেরসঙ্গেসঙ্গেতাদেরবাবা-মাওশিক্ষকরাওএইঅনুষ্ঠানেঅংশগ্রহণকরবেন।এমনকিএবারঅন্যকয়েকটিদেশেরপড়ুয়ারাওঅংশগ্রহণকরছেনএই ‘পরীক্ষাপেচর্চা’ অনুষ্ঠানে।পরীক্ষারসঙ্গেযুক্তসমস্তবিষয়, বিশেষকরে ‘Stress Free Exam’অর্থাৎউৎকণ্ঠাহীনপরীক্ষানিয়েআমারতেজোদীপ্তবন্ধুদেরসঙ্গেঅনেককথাবলব।এইবিষয়েআমিজনগণেরমতামতজানতেচেয়েছিলামএবংএটাখুবইআনন্দেরব্যাপারযেmygov–এপ্রচুরমানুষএইবিষয়েতাঁদেরমতামতজানাচ্ছেন।এরমধ্যেবেশকিছুবিচারবিবেচনাএবংপরামর্শআমিটাউনহলেরসেইঅনুষ্ঠানেআপনাদেরসামনেতুলেধরব।আপনারাঅবশ্যইএইঅনুষ্ঠানেঅংশনিন।সোস্যালমিডিয়াএবং ‘নমোঅ্যাপ’-এরমাধ্যমেআপনারাএইঅনুষ্ঠানেরলাইভটেলিকাস্টদেখতেপাবেন।

আমারপ্রিয়দেশবাসী, ৩০-শেজানুয়ারিবাপুজীরপুণ্যতিথি।সেদিন১১-টারসময়েসমস্তদেশবাপুজীরউদ্দেশেশ্রদ্ধাঞ্জলীনিবেদনকরে।আমরাযেখানেইথাকি,শহীদদেরপ্রতি২মিনিটযেনঅবশ্যইশ্রদ্ধাঞ্জলীঅর্পণকরি।পূজনীয়বাপুজীরপুণ্যস্মরণেতাঁরস্বপ্নকেবাস্তবায়িতকরা, ‘নতুনভারত’-এরনির্মাণ,সুনাগরিকহিসাবেনিজেরকর্তব্যপালনকরারপ্রতিজ্ঞানিয়েইআমরাএগিয়েযাব।২০১৯-এরএইযাত্রাকেসাফল্যেরসঙ্গেআমাদেরএগিয়েনিয়েযেতেহবে।

আপনাদেরসবাইকেঅনেকঅনেকশুভকামনাওঅসংখ্যধন্যবাদ!

২০ বছরের সেবা ও সমর্পণের ২০টি ছবি
Explore More
আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

জনপ্রিয় ভাষণ

আমাদের ‘চলতা হ্যায়’ মানসিকতা ছেড়ে ‘বদল সাকতা হ্যায়’ চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
Prime Minister Modi lived up to the trust, the dream of making India a superpower is in safe hands: Rakesh Jhunjhunwala

Media Coverage

Prime Minister Modi lived up to the trust, the dream of making India a superpower is in safe hands: Rakesh Jhunjhunwala
...

Nm on the go

Always be the first to hear from the PM. Get the App Now!
...
সোশ্যাল মিডিয়া কর্নার 24 অক্টোবর 2021
October 24, 2021
শেয়ার
 
Comments

Citizens across the country fee inspired by the stories of positivity shared by PM Modi on #MannKiBaat.

Modi Govt leaving no stone unturned to make India self-reliant